• Sunday, June 16, 2019

Increase of Bangladeshi radical militants embarrass Bangladeshis abroad.

Discussion in 'Bangladesh Defence Forum' started by Riyad, Jun 15, 2019 at 12:25 AM.

  1. Riyad

    Riyad FULL MEMBER

    Messages:
    1,167
    Joined:
    Jul 30, 2015
    Ratings:
    +1 / 1,437 / -6
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Bangladesh
    Non-resident Bangladeshis ask: Who's Next?

    Nafis, Aasayed , Now Aasiq.


    15/06/2019

    [​IMG]

    On June 7, a young man from Queens was arrested on Thursday June 7 for allegedly planning a terrorist attack on the populous and famous tourist spot Times Square in New York City. His name was Ashikul Alam (22). He is a resident of Queens and has a Green Card.

    Ashikul Alam alias Ashiq was presented to the Federal Court of Brooklyn on Friday, June 8. Surveillance was being carried out for nearly a year for the Ashiq's accusation on criminal charges. The report came out that an undercover agent had made a friendly relationship with him for almost a year.

    Ashiqul was living in the area of the famed Jackson Heights area. Working parents say, 'If my son is wrong, then judge him. If he is trapped and confused, he should be investigated. '

    The Bangladeshis living in America are heading in shame. Expatriates embarrassed to pronounce the name of the country with evil. Bangladeshi Imam Qazi Qayyum, a voice against terrorism and militancy, has said that like Nafis-akayed this year, the honor of the expatriate Bangladeshis has been paralyzed due to Ashikul. Meanwhile, the leader of the drumming organization Dr Qazi Fouzia, who works on human rights, said, "In hundreds of cases in the US jail, hundreds of people are not all Bangladeshi. It is a matter of concern why the Bangladeshi youth are targetted in the past few years. "

    One of the events
    In August 2004, in New York, the capital city of Albany was arrested on charges of terrorist planning, where the Imam Yasin Aref (34) and businessman Mohammad Hossain (46) of As-Salam Mosque in the central road were located. They were planning to attack the cannon-mounted missiles. The complaint against the two US Federal Investigation Agency (FBI) On the complaint, in 2006, they were sentenced to 15 years for two years. Mohammad Hossain was on bail for some time, but he was in prison since the arrest of Araf. On Sunday, June 9, he was sent to Iraq on his birthplace in Iraq.

    Yasin Arif came to the United States as a Kurdish refugee. Not a US citizen. Mohammad Hossain Bangladeshi. Pizzar's shop in Albany was in his house. US citizens in immigration formulas The arrests of these two were discussed quite a bit and mixed reaction was happening throughout the United States. The FBI claims that Yasin Aref's name was written in a notebook by a man detained in a bomb attack in Iraq. According to the sources, both of them have been detained by informant for a long time. Human rights organizations claimed that it was a sort of incident that made both of them victims.

    Two of the events

    28-year-old Matthew Sanchez wants to join the Taliban-informant information that became active in the FBI agents. On February 8, 2013, he was arrested from the San Jose area of California. She was accused of sarcasm, who wanted to blow up a bank building in Oakland, in Oakland.
    An informant who had long been behind Sunitha. Appointment of the FBI. At the same time, Sunish's family was looking for an expert for his psychological treatment. Because, for a long time, mental problems of Sunnyas, who were suffering from various diseases, were also increased. In it, the informant introduces him to an FBI agent, who provides him a car with a fake bombs.
    On February 27, 2014, Sunnyshah was sentenced to 15 years. His lawyer told the court that this incident was a 'game of play', but he did not get any benefit from it even though he mentioned his mental problem.

    The same thing is also here

    Using the information provider, trapping the trap of the incident, the last thing happened around the young Ashikul Alam of Bangladesh. On June 6, the FBI and New York police special team 'Joint Terrorism Task Force' arrested him on charges of planning to destroy the new World Trade Center by throwing firearms and firearms with police and civilians in New York's tourism time-square.

    For nearly a year long an informant was behind Ashikul. Many planes went to buy firearms in a Brooklyn apartment on Thursday. Ashiqul is not accused of terrorism in court, buying arms as part of the attack plan and removing the serial number of them. The court ordered him to be permanently detained.
    Do you remember Bangladeshi young man Kazi Mohammad Rezwanul Ahsan Nafis? On October 17, 2012, the FBI was arrested from the New York Reserve Bank building in Manhattan, with a fake explosive-laden truck worth 1,000 pounds? It is also informative events. Such events are numerous. September 11, 2001 (Nine Eleven) After the attack on Twin Towers in New York, the FBI's power and scope increased. With the rise of people to catch the snare,

    FBI in custody

    According to the FBI published information and various media reports, after the 9/11 attacks with Ashikul Alam, a total of 892 people were detained for terrorist activities by the FBI, or a task force consisting of the agency. 321 of them are again the crop of sting operation. Some of them are accused of providing material support to terrorism, allegations of drug abuse against anyone, and some have been accused of breaking immigration laws. The final information of the information-seeking organization 'The Interspeach', 479 of these people, is now free in the custody of the FBI. The unconditional release was mixed. They are not under the supervision of law enforcement agencies. There are no rules to comply with any rules. That means, the government does not think they are a threat to the country. However, they were arrested for a long time and at the expense of a lot of cash. They were presented in the media as terrible terrorists.
    In a report titled 'The Intercept' on 31 May, 'Trial and Terror', most of the accused who have been accused of FBI terrorism do not have any involvement with any terrorist organization. Many do not have the ability to terrorize. However, the FBI or the organization's information holders themselves were trapped by identifying themselves as a terrorist organization.
    The Intercepport Report said it was directly involved with terrorist groups, leaving 34 people detained by the FBI and making the company's assistant (cooperator). On the contrary, most of the people caught in sting operations are imprisoned for years. Because, they have no information to trade.

    Sting operation and informant debate

    Sting operation is a method of detaining someone for long periods of information, or agents to trap them. Someone wants to commit an offense, the snare page is acting through the act of catching it. In this case, the people of law enforcement agencies or their employers have been trusted by the criminals, sometimes the perpetrators, or sometimes the victim, so-called criminals Then, with him, he made audio, video documents of his activities. The question is, what is the result of these years spent on money? Rights organizations believe that after the Nine Eleven, the FBI did not face much question on the agency in many ways. The FBI has been working on two important issues related to state security and international terrorism.
    The American Civil Liberties Union, a non-profit American organization working on civil rights, believes the FBI has become more powerful since the September 11 (Nine Eleven) terrorist attacks in the aftermath of the Twin Towers being destroyed. Trevor Eronson, executive director of 'Florida Center for Investigative Reporting', has conducted a search on FBI's activities. According to him, the FBI's liability for more than 'al-Qaeda', al-Shabab or Islamic State, even if they all associate, the 'terrorism' of the US is much more than that. He said, "In the United States, the cases filed on terrorism have been reviewed for years, I have come to the conclusion that the FBI is better prepared than terrorists." Such campaigns, which are operated by ordinary information providers, are mentally ill and financially frustrated Terrorists (we say this now) provide the means, opportunities and sometimes ideas.

    The FBI factsheet and other data and statistics goes into analysis, when the international terrorist organization has been at the top of the discussion, the FBI agents have arrested people who have synthesized it with the organization. Since the emergence of Islamic State since 2014, 171 people were detained for direct or indirect impulse with this organization. Bin Laden's Al Qaeda synthesis was caught in 163 people

    To protect the country's people from domestic or foreign terrorism, the US spent $ 3.3 billion in internal counter terrorism. The money was spent on the FBI's informant from this money. An informant gets an average of one million dollars in each case. Statistics say that since the attacks in the Twin Tower, the actual terrorist attack in the United States is not 10 or 10. However, at the same time 321 FBI sting operations, with 278 informational help.

    Who is going to trap this trap
    Statistics and information say, sick, emotional problems, nervous pressure, solitude choice, young people at risk have been targeted for sting operation. A rights activist who follows and analyzes such activities of the FBI said on condition of anonymity, that the FBI turned the target into a science-based strategy. As a result, at the beginning, he had a great objection, but gradually he gradually falsified himself in the FBI net. He said, "The analysis of some incidents has been found in the analysis, that the FBI informants or agents recorded their convenient conversations. If the information is sought from the victim, then the documents were made. It is presented in the court. '

    According to Kazi Fouzier, the organizing director of the drum organization, working with immigrant rights and human rights, "There is a culture of propaganda that, in the event of any incident of Bangladeshi people, it is not the responsibility of the community, which is suicide in ours. It is better to let the law go on its motion without seeing the reaction of an incident as an incident. "He also requested to stop the politics of divisive communities.



    নানা প্রশ্ন প্রবাসী জনমনে
    নাফিস, আকায়েদের পর আশিক

    নিউইয়র্ক সিটির জনবহুল ও বিখ্যাত টুরিস্ট স্পট টাইমস স্কয়ারে সন্ত্রাসী হামলা চালানোর পরিকল্পনা করার অভিযোগে ৭ জুন বৃহস্পতিবার বিকেলে কুইন্সের অধিবাসী এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁর নাম আশিকুল আলম (২২)। তিনি কুইন্সের বাসিন্দা এবং গ্রিনকার্ড আছে তাঁর।
    আশিকুল আলম ওরফে আশিককে ৮ জুন শুক্রবার ব্রুকলিনের ফেডারেল আদালতে হাজির করা হয়। ফৌজদারি অভিযোগে অভিযুক্ত আশিকের গতিবিধির ওপর প্রায় বছর খানেক ধরেই নজরদারি চলছিল। একজন আন্ডারকভার এজেন্ট তাঁর সঙ্গে প্রায় এক বছর ধরে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি করেন বলে রিপোর্ট বেরিয়েছে।
    প্রবাসী বহুল জ্যাকসন হাইটস এলাকায় আশিকুলের বসবাস ছিল। কর্মজীবী বাবা–মা বলছেন, ‘আমার ছেলে যদি অন্যায় করে তাঁর বিচার হোক। যদি তাঁকে বিভ্রান্ত করার জন্য, ফাঁদে ফেলা হয়, তারও তদন্ত হোক।’

    আমেরিকায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের লজ্জায় মাথা হেঁট হচ্ছে। দুষ্কর্মের সঙ্গে স্বদেশের নাম উচ্চারণে বিব্রত প্রবাসীরা। সন্ত্রাস আর জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার বাংলাদেশি ইমাম কাজী কায়্যূম বলেছেন, নাফিস-আকায়েদের মতো এবারে আশিকুলের কারণে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশিদের সম্মান পদদলিত হলো। এদিকে মানবাধিকার নিয়ে কাজ করে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ড্রামের নেত্রী কাজী ফৌজিয়া বলেছেন, ‘কয়েক শ মানুষ আমেরিকার জেলে আছে এমন সাজানো কেসে, তারা সবাই বাংলাদেশি নয়। গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশি যুবকদের কেন টার্গেট করছে সেটা চিন্তার বিষয়।’

    ঘটনা এক
    ২০০৪ সালে আগস্টে নিউইয়র্কের রাজধানী আলবেনিতে সন্ত্রাসবাদী পরিকল্পনার অভিযোগে আটক করা হয় সেখানকার সেন্ট্রাল রোডে অবস্থিত মসজিদে আস-সালামের ইমাম ইয়াসিন আরেফ (৩৪) ও ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হোসেনকে (৪৬)। কাঁধে রেখে ছোড়া যায় এমন মিসাইল কিনে হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছিলেন তারা। দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা এফবিআইর। সেই অভিযোগে ২০০৬ সালে ১৫ বছর করে সাজা হয় দুজনের। মোহাম্মদ হোসেন কিছুদিন জামিনে থাকলেও আরেফ আটক হওয়ার পর থেকে কারাগারে থেকেছেন। গত ৯ জুন রোববার রাতে তাঁকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে তার জন্মস্থান ইরাকে।
    ইয়াসিন আরেফ কুর্দি শরণার্থী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। মার্কিন নাগরিক নন। মোহাম্মদ হোসেন বাংলাদেশি। আলবেনিতে পিজার দোকান ছিল তাঁর। অভিবাসন সূত্রে মার্কিন নাগরিক। এ দুজনের আটকের ঘটনা সেসময় বেশ আলোচিত হয় এবং যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এফবিআই দাবি করে, ইরাকে একটি বোমা হামলার ঘটনায় আটক এক ব্যক্তির কাছে পাওয়া একটি নোট বইয়ে ইয়াসিন আরেফের নাম লেখা ছিল। সেটির সূত্র ধরে দীর্ঘদিন তথ্যদাতা (ইনফরম্যান্ট) লাগিয়ে আটক করা হয়েছে দুজনকে। মানবাধিকার সংগঠনগুলোর দাবি ছিল, এটি একটি সাজানো ঘটনা, যাতে এ দুজনকে শিকার বানানো হয়েছে।

    ঘটনা দুই
    ২৮ বছরের ম্যাথিউ সানিৎসা যোগ দিতে চায় তালিবানে-তথ্যদাতার এমন তথ্যে সক্রিয় হয়ে ওঠে এফবিআইর এজেন্টরা। ২০১৩ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি ক্যালিফোর্নিয়ার সান জোসে এলাকা থেকে আটক করা হয় তাকে। সানিৎসার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়, ওকল্যান্ডে একটি ব্যাংক ভবন গাড়িবোমায় উড়িয়ে দিতে চেয়েছিলেন তিনি।
    সানিৎসার পেছনে দীর্ঘদিন লেগে ছিলেন একজন তথ্যদাতা। এফবিআইর নিয়োগ করা। একই সময়ে, সানিৎসার পরিবার তার মানসিক চিকিৎসার জন্য একজন বিশেষজ্ঞ খুঁজছিলেন। কারণ, দীর্ঘদিন ধরে, হাঁপানিসহ নানা রোগে ভুগতে থাকা সানিৎসার মানসিক সমস্যাও বেড়ে চলেছিল। এর মধ্যে, তার সঙ্গে তথ্যদাতা পরিচয় করিয়ে দেয় একজন এফবিআই এজেন্টকে, যিনি তাকে নকল বোমাসহ একটি গাড়ি সরবরাহ করেন।
    ২০১৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ১৫ বছরের সাজা হয় সানিৎসার। আদালতে তার আইনজীবীরা এ ঘটনাকে ‘পাতানো খেলা’ বলে মন্তব্য করে তার মানসিক সমস্যার কথা তুলে ধরলেও তাতে কোনো লাভ হয়নি।

    একই ঘটনা এখানেও
    তথ্যদাতাকে ব্যবহার করে, ফাঁদ পেতে আটকের ঘটনা সবশেষটি ঘটেছে বাংলাদেশের তরুণ আশিকুল আলমকে ঘিরে। নিউইয়র্কের পর্যটকবহুল টাইম স্কয়ারে পুলিশ ও সাধারণ মানুষকে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে মারার, রকেট ছুড়ে নতুন ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার ধ্বংস করে দেওয়ার পরিকল্পনা করা অভিযোগে গত ৬ জুন বৃহস্পতিবার এফবিআই আর নিউইয়র্ক পুলিশের বিশেষ দল ‘জয়েন্ট টেররিজম টাস্ক ফোর্স’ আটক করে তাঁকে।
    দীর্ঘ প্রায় এক বছর একজন তথ্যদাতা লেগে ছিল আশিকুলে পেছনে। নানা পরিকল্পনা করে দুজনে বৃহস্পতিবার ব্রুকলিনের একটি অ্যাপার্টমেন্টে আগ্নেয়াস্ত্র কিনতে যায়। আটক আশিকুলের বিরুদ্ধে আদালতে সন্ত্রাসবাদের নয়, আনা হয়েছে হামলা পরিকল্পনার অংশ হিসেবে অস্ত্র কেনা এবং সেগুলোর সিরিয়াল নম্বর মুছে ফেলার অভিযোগ। আদালত তাঁকে স্থায়ীভাবে আটক রাখার আদেশ দেয়।
    বাংলাদেশি যুবক কাজী মোহাম্মদ রেজওয়ানুল আহসান নাফিসের কথা মনে আছে? ২০১২ সালের ১৭ অক্টোবর, ১ হাজার পাউন্ডের নকল বিস্ফোরকভর্তি ট্রাকসহ যাকে ম্যানহাটনের নিউইয়র্ক রিজার্ভ ব্যাংকের ভবন থেকে আটক করেছিল এফবিআই? সেটিও তথ্যদাতানির্ভর ঘটনা। এমন ঘটনা অসংখ্য। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর (নাইন ইলেভেন) নিউইয়র্কে টুইন টাওয়ারে হামলার পর এফবিআইর ক্ষমতা আর কর্মপরিধি বেড়েছে। সঙ্গে বেড়েছে ফাঁদ পেতে মানুষকে ধরার ঘটনা।

    কাঠগড়ায় এফবিআই
    এফবিআই প্রকাশিত তথ্য ও বিভিন্ন মাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, আশিকুল আলমকে নিয়ে নাইন ইলেভেনের পর থেকে মোট ৮৯২ জনকে সন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ডের জন্য আটক করে এফবিআই, কিংবা এ সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত টাস্কফোর্স। এদের ৩২১ জন আবার স্টিং অপারেশনের ফসল। এদের কারো বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে বস্তুগত সহায়তা দেওয়ার অভিযোগ, কারো বিরুদ্ধে মাদক সংক্রান্ত অভিযোগ, কেউ অভিবাসন আইন ভেঙেছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়। তথ্যানুসন্ধানী সংবাদ প্রতিষ্ঠান ‘দা ইন্টারসেপ্ট’–এর সবশেষ তথ্য, এফবিআইর হাতে আটক এসব ব্যক্তির মধ্যে ৪৭৯ জনই এখন মুক্ত। নিঃশর্ত মুক্তি মিলেছে তাদের। তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পর্যবেক্ষণে নেই। কোনো নিয়ম মানার বাধ্যবাধকতাও নেই। এর অর্থ, সরকার তাদের আর দেশের প্রতি হুমকি মনে করে না। অথচ দীর্ঘ সময় আর প্রচুর নগদ অর্থ ব্যয়ে এদের আটক করা হয়েছিল। তাদের গণমাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছিল ভয়ংকর সন্ত্রাসী বলে।
    ৩১ মে, ‘ট্রায়াল অ্যান্ড টেরর’ শিরোনামে এক প্রতিবেদনে ‘দা ইন্টারসেপ্ট’ উল্লেখ করে, এফবিআই সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ এনে আসামি করেছে এমন বেশির ভাগেরই কোনো সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা নেই। অনেকের সন্ত্রাস করার মতো সক্ষমতা নেই। অথচ, এদের ধরতে এফবিআই কিংবা সংস্থার তথ্যদাতারা নিজেরা নিজেদের সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের লোক বলে পরিচয় দিয়ে ফাঁদ পেতেছিল।
    দা ইন্টারসেপ্ট প্রতিবেদনে বলা হয়, সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোর সঙ্গে সরাসরি জড়িত ছিল, আটক এমন ৩৪ জনকে এফবিআই ছেড়ে দিয়ে সংস্থার সহায়তাকারী (কোঅপারেটর) বানিয়েছে। বিপরীতে, স্টিং অপারেশনে ধরা পড়া বেশির ভাগ ব্যক্তি বছরের পর বছর কারাগারে আটক রয়েছেন। কারণ, বাণিজ্য করার কোনো তথ্য তাদের কাছে নেই।

    স্টিং অপারেশন এবং ইনফরম্যান্ট বিতর্ক
    দীর্ঘদিন তথ্যদাতা লাগিয়ে, কিংবা এজেন্ট নিজে ফাঁদ পেতে কাউকে আটকের পদ্ধতি হচ্ছে স্টিং অপারেশন। কেউ একজন কোনো অপরাধ করতে চায়, তাকে ধরতে অভিনয়ের মাধ্যমে ফাঁদ পাতা হচ্ছে এ অপারেশনের বৈশিষ্ট্য। এ ক্ষেত্রে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকজন কিংবা তাদের নিয়োগ করা তথ্যদাতা কখনো অপরাধীর, কখনো অপরাধীর সহযোগীর, আবার কখনো ভুক্তভোগীর অভিনয় করে আস্থাভাজন হন তথাকথিত অপরাধীর। এরপর, তার সঙ্গে কথোপকথন, তার নানা কর্মকাণ্ডের অডিও, ভিডিও দলিল তৈরি করেন। প্রশ্ন উঠেছে, বছরের পর বছর সময় আর অর্থ ব্যয় করে এসবের ফল কি? অধিকার সংগঠনগুলো মনে করে, নাইন ইলেভেনের পর এফবিআই নানা কায়দায় এ সংস্থাকে বেশি প্রশ্নের মুখোমুখি হতে দেয়নি। রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা ও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ এই দুই সংবেদনশীল বিষয়কে ভালোই কাজ লাগিয়েছে এফবিআই।
    নাগরিক অধিকার নিয়ে কাজ করা নন-প্রফিট মার্কিন সংগঠন ‘আমেরিকান সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন’ মনে করে, ২০০১ সালে ১১ সেপ্টেম্বর (নাইন ইলেভেন) সন্ত্রাসী হামলায় টুইন টাওয়ার ধ্বংস হওয়ার পর থেকে, এফবিআই বেশি ক্ষমতাধর হয়ে উঠেছে। ‘ফ্লোরিডা সেন্টার ফর ইনভেস্টিগেটিভ রিপোর্টিং’–এর নির্বাহী পরিচালক ট্রেভর এরনসন এফবিআইর কর্মকাণ্ড-নিয়ে তথ্যানুসন্ধান করেছেন। তাঁর মতে আল কায়েদার চেয়ে বেশি, আল শাবাব কিংবা ইসলামিক স্টেটের চেয়ে, এমনকি এরা সবাই মিলে যা করে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এর চেয়ে অনেক বেশি যে ‘সন্ত্রাস-নকশা’ করার দায় এফবিআইর। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগে দায়ের করা মামলাগুলো বছরের পর বছর ধরে পর্যালোচনা করে, আমি এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি যে, এফবিআই সন্ত্রাসী ধরার চেয়ে তৈরিতে বেশ ভালো।’ এ ধরনের অভিযান, যেগুলো সাধারণ একজন তথ্যদাতা দিয়ে পরিচালিত হয়, মানসিক অসুস্থ এবং আর্থিকভাবে হতাশাগ্রস্ত ব্যক্তিদের সন্ত্রাসবাদী (আমরা এখন এভাবে বলি) হওয়ার উপায়, সুযোগ এবং কখনো কখনো ধারণার জোগান দেয়।

    এফবিআই ফ্যাক্টশিট ও অন্যান্য তথ্য ও পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে যায়, যখন যে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আলোচনার শীর্ষে থেকেছে, এফবিআই এজেন্টরা সে সংগঠনের সঙ্গে সংশ্লেষ আছে এমন ব্যক্তিদের আটক করেছেন বেশি। ২০১৪ সাল থেকে ইসলামিক স্টেটের উত্থানের পর এ সংগঠনের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ঝোঁকের দায়ে ১৭১ জনকে আটক করা হয়। বিন লাদেনের আল কায়েদা সংশ্লেষে ধরা হয় ১৬৩ জনকে।

    দেশি কিংবা বিদেশি সন্ত্রাসবাদী কাজ থেকে দেশের মানুষের নিরাপত্তার জন্য যুক্তরাষ্ট্র অভ্যন্তরীণ কাউন্টার টেররিজম খাতে ব্যয় করে ৩.৩ বিলিয়ন ডলার। এ অর্থ থেকে এফবিআইর তথ্যদাতার পেছনেও ব্যয় হয় বিরাট অঙ্ক। একজন তথ্যদাতা প্রতিটি কেসে গড়ে এক লাখ ডলার সম্মানী পান। পরিসংখ্যান বলছে, টুইন টাওয়ারে হামলার পর থেকে এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে প্রকৃত সন্ত্রাসী হামলা ঘটনা ১০টিও নয়। অথচ, একই সময়ে এফবিআই স্টিং অপারেশন চালিয়েছে ৩২১টি, যার ২৭৯টি তথ্যদাতার সাহায্য নিয়ে।

    কারা পা দিচ্ছে এই ফাঁদে
    পরিসংখ্যান ও তথ্য বলছে, অসুস্থ, মানসিক সমস্যাগ্রস্ত, স্নায়বিক চাপে থাকা, নির্জনতা পছন্দ করা, খরুচে তরুণেরাই স্টিং অপারেশনের লক্ষ্যবস্তু হয়েছেন। এফবিআইর এমন কর্মকাণ্ড অনুসরণ ও বিশ্লেষণ করেন এমন একজন অধিকার কর্মী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, এফবিআই বিজ্ঞাননির্ভর কৌশলে লক্ষ্যবস্তুকে শিকারে পরিণত করেন। এর ফলে, শুরুতে চরম আপত্তি থাকলেও একসময় ধীরে ধীরে তিনি এফবিআইর জালে নিজেকে সঁপে দেন। তিনি বলেন, ‘কয়েকটি ঘটনার চুলচেরা বিশ্লেষণে মনে হয়েছে, এফবিআই তথ্যদাতা বা এজেন্ট তার সুবিধাজনক কথোপকথন রেকর্ড করেন। শিকারের সঙ্গে আলোচনা তথ্যদাতার পক্ষে গেলে সেগুলোর ডকুমেন্ট তৈরি করা হয়। আদালতে উপস্থাপন করা হয়।’

    অভিবাসী অধিকার ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘ড্রাম’ এর অরগানাইজিং ডিরেক্টর কাজী ফৌজিয়ার মতে, ‘এ ধরনের কথা বলা, বাংলাদেশিদের নিয়ে কোনো ঘটনা ঘটলে সে ঘটনার দায় কমিউনিটির নয় বলে প্রচারেরও একটা সংস্কৃতি দেখা যায় আমাদের মধ্যে, যা আত্মঘাতী। একটা ঘটনাকে ঘটনা হিসেবে দেখে সেটি নিয়ে অতিপ্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে আইনকে তার গতিতে চলতে দেওয়া ভালো।’ তিনি, কমিউনিটিতে বিভেদের রাজনীতি বন্ধেরও অনুরোধ জানান।

    তথ্যদাতা বনাম এজেন্ট
    তথ্যদাতা নিয়োগ দেন একজন এজেন্ট। এতে এফবিআই কর্তৃপক্ষের কোনো হাত নেই। একটি সমন্বিত অ্যাপস ‘ডেলটা’র মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হয় এজেন্টদের কর্মকাণ্ড। এই এজেন্ট আর তথ্যদাতার মধ্যে বিরোধের নানা কাহিনি আলোচিত হয়ে আছে। তথ্যদাতা নিয়োগের জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শনের ঘটনাও আছে। নাজি মনসুরের ঘটনা ২০১৪ সালের। কেনিয়া বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক মনসুর সুদানে আটক হয়ে নির্যাতনের শিকার হন। দীর্ঘদিন তাঁকে পরিবার আর সন্তানদের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে রাখা হয়। তিনি পরে গণমাধ্যমে অভিযোগ করেন, এফবিআইর তথ্যদাতা হওয়ার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার পর তার ওপর নির্যাতন শুরু হয়। তাঁকে গাড়ি চাপা দিয়ে মেরে ফেলারও হুমকি দেন একজন এজেন্ট।

    এফবিআইর তথ্যদাতা হওয়ার কারণে প্রভাব বিস্তারের ঘটনাও কম নয়। ২০১৮ সালে অক্টোবরে আপস্টেট নিউইয়র্ক হাইওয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় ২০ জনের প্রাণহানির ঘটনায় নাম আসে এফবিআই তথ্যদাতা শাহেদ হোসেনের। তিনি দুর্ঘটনা কবলিত লিমোর মালিক। আইন রক্ষার জন্য এফবিআইকে সহায়তাকারী এই পাকিস্তানি আলবেনিতে ইরাকি ইমাম ইয়াসির আরেফ ও বাংলাদেশি ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলমকে ধরিয়ে দিয়েছিলেন। শাহেদ নিজে নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তাঁর লিমো কোম্পানিটির বৈধতা ছিল না। লিমোর লাইসেন্স ছিল না। এরপরও, শুধু এফবিআইর তথ্যদাতা হওয়ার কারণে তিনি সব অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু একসময় তাঁকে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে হয়। দুর্ঘটনায় প্রাণহানির দায়ে বিচারের মুখোমুখি হন তাঁর ছেলে।

    এফবিআই এবং বাংলাদেশি জনসমাজ
    বিভিন্ন সময়ে এফবিআইয়ের অপারেশনে আটক হয়েছে অন্তত ৬ বাংলাদেশি। এদের মধ্যে আলোচিত কাজী মোহাম্মদ রেজওয়ানুল আহসান নাফিস (২০১২), মোহাম্মদ হোসেন (২০১৪), এবং সাম্প্রতিক হওয়ার কারণে আশিকুল আলম। এ ঘটনাগুলোর কারণে এফবিআই নিয়ে বাংলাদেশি জনসমাজে মিশ্র প্রতিক্রিয়া আছে। তবে অনেকে মনে করেন, জাতিগোষ্ঠী হিসেবে বাংলাদেশিরা এফবিআইর লক্ষ্যবস্তু হওয়ার কথা নয়। রাশিয়া, চীন, ইয়েমেন, সোমালিয়াসহ আরও কয়েকটি দেশের নাগরিকদের প্রতি এফবিআই জাতিগোষ্ঠীভিত্তিক নজর পড়লেও বাংলাদেশিরা সেদিক থেকে নিরাপদ বলে মনে করা হয়।

    যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অধিকার সংগঠন দাবি করে আসছে, মুসলমানদের প্রতি এফবিআইর আগ্রাসী ও নিবর্তনমূলক দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। বাংলাদেশি সমাজের প্রবীণ নেতা ছালামত উল্লাহর মতে, এফবিআই ফাঁদে ফেলার কাজটা খুব ভালোভাবে করে। সেকারণে আমাদের সবার সতর্ক থাকা উচিত। বিশেষ করে, তরুণদের প্রতি বিশেষ নজর দেওয়া উচিত। তাঁরা কোথায় যায়, কার সঙ্গে মিশে সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।’ সন্তানের সঙ্গে বা মায়ের, তরুণ-যুবাদের সঙ্গে আত্মীয় পরিজনের সম্পর্ক আরও নিবিড় করা দরকার বলে মনে করেন তিনি।

    এফবিআই’র নিয়ন্ত্রণ জরুরি!

    তদন্ত সংস্থা হিসেবে এফবিআইর দক্ষতা ও পেশাদারি নিয়ে খুব কম প্রশ্ন উঠেছে। বিধিবদ্ধ একটি সংস্থা হওয়ার পরও এফবিআই নানা গোপন নিয়মে কাজ করে। নাইন ইলেভেনের পর ১৫ শত তথ্যদাতার সঙ্গে রাতারাতি যোগ হয়ে যায় আরও সাড়ে ১৩ হাজার। এজেন্টের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩০ হাজারে। কাজের ক্ষেত্র বেড়ে সন্ত্রাসবাদ যোগ হয় বিস্তৃত পরিসরে। ২০০৮ সালে অ্যাটর্নি জেনারেল মাইকেল মিউকেসির অফিস এ সংস্থার জন্য যে ইনভেস্টিগেশন গাইডলাইন তৈরি করে দেয়, যেটিতে আসলে শতভাগ না মেনে নিজেদের কর্মকাণ্ড-গোপনীয়তা আর রহস্যময়তায় ঢেকে রাখে এফবিআই। অনেক কিছুতে জবাবদিহির ক্ষেত্র খুব সীমিত হওয়ার কারণে, সন্ত্রাস নির্মূলের নামে জনসমাজ, জাতিগোষ্ঠী, ধর্মীয় গোষ্ঠী, রাজনৈতিক ভিন্নমতাবলম্বী, সাংবাদিক-এমন অনেকের ওপর নজরদারি শুরু করে এফবিআই। এ কাজ এত বেশি লাগামহীন হয়ে পড়ে যে, একসময় এফবিআইর ফাইলের সংখ্যা গিয়ে পৌঁছায় ছয়শ কোটিতে। জনপ্রতি দিনে গড়ে ২০টি করে ফাইল ভাগে পড়বে।

    সংবাদমাধ্যম ‘দা ইনটারসেপ্ট’ এর মতে, বিধি থাকলেও সেগুলো না মেনে এফবিআই রাজনৈতিক ও ধর্মীয় গোষ্ঠীগুলোকে নজর দিচ্ছে। অ্যান্টি-প্রোফাইলিং বিধিমালা থাকার পরও কাউকে লক্ষ্যবস্তু করতে তার ধর্ম ও বর্ণকে গুরুত্ব দিচ্ছে সংস্থাটি। শুধু তাই নয়, সাংবাদিকদের ওপর নজরদারির ঘটনাও বাড়িয়েছে তারা। দা ইনটারসেপ্ট বলছে, এসবের প্রমাণ হিসেবে অসংখ্য দলিল দস্তাবেজ আছে তাদের হাতে।

    https://www.prothomalo.com/northamerica/article/1599169/নাফিস-আকায়েদের-পর-আশিক
     
    Last edited: Jun 15, 2019 at 12:55 AM
  2. war&peace

    war&peace ELITE MEMBER

    Messages:
    28,989
    Joined:
    Aug 12, 2015
    Ratings:
    +24 / 50,520 / -9
    Country:
    Pakistan
    Location:
    Sweden
    Until Bd will continue to be ruled by the filth, the radicalisation will keep increasing.
     
    • Thanks Thanks x 2
  3. Riyad

    Riyad FULL MEMBER

    Messages:
    1,167
    Joined:
    Jul 30, 2015
    Ratings:
    +1 / 1,437 / -6
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Bangladesh
    The matter of concern is how Bangladeshi youths become such radical militants abroad.

    In this forum also Pakistanis are observed as more tolerant and peace loving Muslims than some of my own countrymen, Bangladeshis. Its shocking for me. These Bangladeshis are mostly from Sylhet district of Bangladesh.


    The allegations of terrorism and our responsibility against the Bangladeshi youth.
    Imam Qazi Qayyum

    14 June 2019, 20:06
    Update: 14 June 2019, 20:06
    Print version

    [​IMG]

    Qazi Qayum

    Kazi Nafis Then Akade Ullah. Now, another Bangladeshi young man Ashikul Alam (22) was arrested from New York's New York Jackson Heights? Following the accusations of terrorist activities in the United States of America, these three young men have mixed the honor and dignity of the innocent and proven American citizens. After the events, the Americans have started looking at the Bangladeshi and our youth, whose adverse reaction will stand in the way ahead of our new generation in America.

    But do we have any responsibility for those who are involved in religious and social services with mosques-madrasas, Islamic and social centers and associations?

    After 9/11, in order to create awareness among US-based Bangladeshi activists against religious terrorist activities, especially at the Mohammedi Community Center of Jackson Heights, whose work permit is not confined within the four walls of the mosque, its volunteer organization 'Anti Terrorism Awareness Unit (AU)', whose main motto The Mission Statement 'Says Something, If Sees Something' That is moving forward. In spite of strong resistance, criticism and irony, Akyed Ullah from Kazi Nafis and in the United States where terrorism has taken place, anti Terrorism Awareness Unit has not been left to raise such issues to make the community aware.

    Au thinks that a special Bangladeshi political militant group rising in the United States, whose main sound is 'Islamic injunction and jihad', who take advantage of different opportunities in different names in the name of the country, by their own means and interests, the mosque, Islamic centers, madrasas, social and cultural organizations, through their invisible jihadist doctrine Yaksa our new generation of direct and indirect incitement has been brain washed. Knowing the worst of the situation, they are not hesitant to be driven to such evils. Even the paraphrasing of Paradise in the blissful ecstasy of being brain-bogged in the ecstasy. What does not make us rock?

    After the incident of Kazi Nafis and Aqayed Ullah, they heard lobbying some active activists to save their lives and also to save them and talk to them indirectly by press conference. We have heard them say, 'They are our sons, we have to save them, as they are.' They are sick! Mental equilibrium. But the question is, who made them like this? Why are they unbalanced today? Who were they desperate to provoke? Au thinks that these deep water fishermen, who are doing such terrorism in the role of 'silent jihad' by instigating our easy new generation, they are always going out of the way.

    So let us, we identify these motors and their religious centers or organizations and keep our young people away from their hands. Au thinks that Islam is the only peace, which has been given by Muhammad Muhammad Rasulullah (peace be upon him) in the speech of his eternal farewell Hajj, for the people who came to the Resurrection more than 1,400 years ago. In addition, Islam, terrorism, terrorism, Taliban, al-Shabab, Bakoharam, and Islam can never be the Islam of peace. Such activities will indirectly lead peaceful Muslims and their new generation towards terrorism. Anti-terrorism organization Anti Terrorism Awareness Unit believes that Kazi Nafis, Akayed Ullah and Ashiqul Alam have been following this situation due to Islam.

    https://www.prothomalo.com/northamerica/article/1599167/যুবকদের-বিরুদ্ধে-সন্ত্রাসের-অভিযোগ-ও-আমাদের
     
    Last edited: Jun 15, 2019 at 1:00 AM
  4. proudindian20

    proudindian20 BANNED

    Messages:
    178
    Joined:
    Mar 3, 2019
    Ratings:
    +0 / 71 / -5
    Country:
    Canada
    Location:
    India
    I generally try to stay away from Bangladeshis in Canada. When talking to them they somehow make me feel like uncomfortable that I'm originally from India and a Hindu. I never feel that way with white people or asian people here.

    So I just reciprocate and don't get involved with them much.
     
  5. Riyad

    Riyad FULL MEMBER

    Messages:
    1,167
    Joined:
    Jul 30, 2015
    Ratings:
    +1 / 1,437 / -6
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Bangladesh
    Don't judge Bangladeshis based on few idiot Bangladeshis abroad. We are also embarrassed by these low lives jerks. These people mostly went to Canada and America from North-eastern Bangladesh , mainly from or nearby Sylhet district. These people are in general a bit radical compared to other district people.

    Bangladeshi Muslims are peace loving but somehow those who live abroad have become radicals. The reason is still to be found.
     
  6. proudindian20

    proudindian20 BANNED

    Messages:
    178
    Joined:
    Mar 3, 2019
    Ratings:
    +0 / 71 / -5
    Country:
    Canada
    Location:
    India
    I see. Cool good to know man. I generally approach new people without any preconceived notions.
     
  7. mmr

    mmr FULL MEMBER

    New Recruit

    Messages:
    87
    Joined:
    Oct 13, 2018
    Ratings:
    +0 / 135 / -0
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Canada
    White and Asians in Canada are far more nicer and down to earth than brown people regardless its Indian or pak or bd. And most brown people specially second generation dont care who is pak Indian or bd they all hang out together. Just go to brampton or mississauga or surrey see by your self.

    Only idiot and shameless scum is you. I didn't know you have internet access at Mumbai slum. Did Bangladeshi muslims cut your tiny **** to do musalmani lol reason why you keep posting thread like this.
     
    • Thanks Thanks x 1
  8. Michael Corleone

    Michael Corleone SENIOR MEMBER

    Messages:
    4,787
    Joined:
    Oct 27, 2014
    Ratings:
    +0 / 3,596 / -2
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Ukraine
    this coming from you two is laughable xD

    so you're gonna judge an entire group of people based on a few bad experiences... okay

    yeah desis are usually shitty people
     
    • Thanks Thanks x 1
  9. Protest_again

    Protest_again FULL MEMBER

    New Recruit

    Messages:
    85
    Joined:
    May 19, 2019
    Ratings:
    +0 / 48 / -0
    Country:
    India
    Location:
    India
    I had a Bangladesh friend in US. 'Mohammaduzzaman' or something was his name. He was alright. Hung out few times. Didn't seem radical.

    I think its a good thing that country is discouraging such radical behaviour and associating shame to such acts. Future radicals will think twice before signing up.
     
  10. thunderr

    thunderr FULL MEMBER

    Messages:
    439
    Joined:
    Jun 21, 2011
    Ratings:
    +0 / 279 / -0
    Bangladeshies talent has got a good grip in prostitution business in Dubai ,they are good at it , In jebel ali freezone you will find young guys playing cards and looting innocent. Seen alot of banglos over there
     
  11. Clutch

    Clutch SENIOR MEMBER

    Messages:
    7,893
    Joined:
    Aug 3, 2008
    Ratings:
    +6 / 9,524 / -1
    Bangladesh needs to do more to stop the export of Bangladeshi terrorist.
     
  12. thunderr

    thunderr FULL MEMBER

    Messages:
    439
    Joined:
    Jun 21, 2011
    Ratings:
    +0 / 279 / -0
    Why are you ppl so much to obsessed with us? Get a frickin life man !!!!! atleast my PM is not a terriost like your so called chowkidar
     
  13. Imran Khan

    Imran Khan PDF VETERAN

    Messages:
    48,087
    Joined:
    Oct 18, 2007
    Ratings:
    +38 / 86,718 / -39
    Country:
    Pakistan
    Location:
    Pakistan
    its just karma you guys were bashing others since years until dahaka sage
     
  14. proudindian20

    proudindian20 BANNED

    Messages:
    178
    Joined:
    Mar 3, 2019
    Ratings:
    +0 / 71 / -5
    Country:
    Canada
    Location:
    India
    I'm just pointing to the situation dude. Earlier the terrorists doing these incidents were Pakistanis but now they are more Bangladeshis. Looks like Pakistan lost their terrorist funding to Bangladesh.
     
  15. Imran Khan

    Imran Khan PDF VETERAN

    Messages:
    48,087
    Joined:
    Oct 18, 2007
    Ratings:
    +38 / 86,718 / -39
    Country:
    Pakistan
    Location:
    Pakistan
    you guys are no position to bash as you are just very close in terror list 2019

    7th world terror hit country
    [​IMG]
     
    • Thanks Thanks x 1