What's new

Bangladeshi hostage gave life for his Indian and American friends

Riyad

FULL MEMBER
Jul 30, 2015
1,425
-5
1,683
Country
Bangladesh
Location
Bangladesh
Faraaz Ayaaz Hossain, a hero who refused to abandon his friends as attackers stormed the Dhaka cafe

The 20-year-old has provided all Bangladeshis with inspiration for generations, says an editorial in the 'Dhaka Tribune'.





Faraaz with his Indian friend Tarishi Jain.

Faraaz Ayaaz Hossain was only 20 years old when he was killed in the terrorist attack at the Holey Artisan Bakery on July 1, but he died a man.

In his bravery and selflessness he has provided all Bangladeshis with an inspiration for generations to come and a lesson in how to live our lives.

He has shown us that grace and nobility still exist in this world and that we will not be defined by the actions of a handful of misguided and murderous youth.

As the nation wonders with horror how it could have given birth to the killers, who represent the very worst of humanity, and what it says about a society that did so, we can take comfort in the fact that Bangladesh also produced a young man like Faraaz.

It is his name and deeds that should live on, and he who we should think of when we think of that fateful night.

We cannot even imagine the pain and sorrow of his parents and other family as they mourn the death of this remarkable young man, and while nothing can ever take away their anguish at seeing his promising young life cut short so cruelly, they can at least be proud of how he died and take comfort in the knowledge that they raised him to be a true man, with the spirit of a warrior and the heart of a lion.

The terrorists offered him the opportunity to save his own life and walk away to freedom, but when they refused to let his two friends, Abinta Kabir and Tarishi Jain, leave as well, he elected to stay with them and share their fate rather than save himself.

He refused to abandon them and was found dead the next morning, alongside them, when the commandos raided the compound and brought the siege to a close.

Faraaz died a hero.

Nothing will bring him back and that is a true tragedy.

But, as the nation mourns in the aftermath of the Friday night atrocity that has shaken the faith of the entire country, we should all take pride in the fact that one such as Faraaz Ayaaz Hossain lived among us, and in this moment of shame and shock for the nation was able to show the world the best of Bangladesh and what it means to be a true Muslim.

This article first appeared on the Dhaka Tribune website.

We welcome your comments at letters@scroll.in.

http://scroll.in/article/811116/dhaka-tribune-editorial-a-hero-for-our-times
 
Last edited:

monitor

ELITE MEMBER
Apr 24, 2007
8,189
6
11,297
Country
Bangladesh
Location
Bangladesh
Another opinion coming claims he too may be member of the militant group.

আমরা এখন আপনাদের যে তথ্য দিতে যাচ্ছি সেটি শুনলে আপনারা হয়ত চমকে উঠবেন কিংবা আপনাদের ভেতরে জেগে উঠবে সন্দেহ। এমনও হতে পারে যে আপনি আমাদের প্রতি ঘৃণায় মুখ কুঁচকাবেন আমাদের মিথ্যেবাদী বলে।

কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা পরিশ্রম করে, ডি কে হোয়াং নামের কোরিয়ান ভদ্রলোকের গোপনে ধারনকৃত ভিডিও দেখে এবং সেটি থেকে কেটে কেটে, প্রতি সেকেন্ডের ভিডিও পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে ফারাজ আইয়াজ হোসেন নামে যে ছেলেটিকে নানা মিডিয়া (বিশেষ করে প্রথম আলো) যে হিরো বানাচ্ছে আসলে এই ফারাজ-ই হচ্ছে গুলশান ম্যাসাকারের জঙ্গীদের মধ্যে একজন জঙ্গী। আমরা আমাদের এই দাবীর পক্ষে যুক্তি দিব, প্রমাণ দেব এবং আমাদের এই দাবী আর যুক্তিগুলোকে আপনাদের সামনে যথাযথভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব।

প্রথম আলোর মালিক লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ আইয়াজ হোসেনের সম্পর্কে যে হিরোসুলভ ও মহিমান্বিত সংবাদ আমরা পাচ্ছি সেটিকে পোর্টাল বাংলাদেশ কোনোভাবেই বিশ্বাস করেনি নানান কারনেই। আর সে না করার পেছনে কারন একটাই। সেই হোয়াং সাহেবের ভিডিও। হোয়াং সাহেবের ভিডিওতে একটি অংশে দেখা যাচ্ছে যে একটি জঙ্গী রেস্টুরেন্টের মূল ঢুকবার কাঁচের দরজার পাশে অবস্থান নিয়েছে এবং কয়েক সেকেন্ডের জন্য সে দরজা দিয়ে উঁকি মারছে। তার পিঠে রয়েছে পেছনে “উইলসন” নামের একটি ব্যাগ।(র‍্যাকস্যাক)







আমরা এই জঙীটির উঁকি দেয়ার ভিডিও আপনাদের প্রথমে নরমাল মোশনে দেখাব। তারপর এই একই ভিডিও-ই আমরা একটু স্লো করে করেছি, তারপর আবার আরেকটু স্লো। তিন বারের এই একই ভিডিওতে আপনারা যাকে দেখবেন তার সাথে ফারাজ আইয়াজ হোসেনের ছবিটি এইবার একটু মেলান।কি চমকে গেলেন? ফারাজের মতই লম্বা, চুলকাটা আর স্পস্ট তারই প্রতিচ্ছবি।

জঙ্গিটির বা দিকের চুল একটু ছাটা আর ডান দিকের চুল কম। সাম্প্রতিক সময়ের চুলের এই স্টাইল-ই ছিলো এই উঁকি মারা জঙ্গীর। এইবার আপনি ফারাজের চুলের স্টাইল দেখুন। কি দেখলেন? মিলে গেছে, তাই তো? এইবার আসুন দেখি ফারাজের উচ্চতা কেমন। উঁকি মারা জঙ্গীটির উচ্চতা কমের পক্ষে ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি থেকে ৬ ফুট। আমাদের অনুমান সেটাই বলে। এইবার আপনি ফারাজের উচ্চতা দেখুন নিচের ছবিতে। আন্দাজ করতে পারবেন আপনিও।




ফারাজ আমেরিকার একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে এখন আর সে ইউনিভার্সিটিতে পড়ে তারই বন্ধু আবন্তি। তাদের আরেক বন্ধু ভারতীয় তারাশি জৈন। এই দুজনকে আসলে মরতেই হোতো কেননা ফারাজ যে জঙ্গী এটা তারা জেনেছিলো এই ভয়াবহ রাতে। একইভাবে ইশরাত আখন্দকে প্রাণ দিতে হয়েছিলো কারন ঘটনাটা ইশরাতও দেখে ফেলেছে। এরা মুক্তি পেলে প্রথম আলোর কর্ণধার নানা লতিফুরের বারোটা বাজবে, সেটা জঙ্গী ফারাজ ঠিকি জানতো। সুতরাং সে ঝুঁকি সে নেবে কেন?

আর বাকী বাংলাদেশী যারা মুক্তি পেয়েছে সেই দলের হোতা যে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির হাসনাত করিম এবং সেও যে জঙ্গীদের সহযোগী এই ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমে ইতিমধ্যেই লেখা হয়েছে। তাই এরা মুক্তি পেলে এই সত্য আর কেউ জানতে পারবে না, এই ব্যাপারে ফারাজ নিশ্চিত ছিলো।

আইন শৃংখলা বাহিনী ৬ জনকে হত্যা করেছে আর এক জঙ্গীকে ধরেছে এই কথা বার বার চাউর করা হলেও আমরা ৫ জনের লাশ দেখেছি আর তাদের সাথে আছে শেফের পোষাক পরা একজনের লাশ। এই শেফ লোকটি জঙ্গী নয় কিন্তু খামাখাই মিডিয়া তাকে জঙ্গী বলে প্রচার করেছে। এই শেফ লোকটির নাম সাইফুল। তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়াচ্ছে? দাঁড়াচ্ছে যে ৬ জঙ্গী হত্যার কথা বল্লেও আসলে লাশ পেলাম ৫ জনের। কিন্তু প্রথম একটি ছবিতে ফারাজের লাশ দেখা গেলেও আরেকটি ছবিতে ফারাজের লাশ পুরোপুরি উধাও। আর প্রথম ছবিতে ফারাজের লাশ চিহ্নিত করা গেছে তার পায়ের সাদা কেডস দেখে। ভিডিওতে আপনারা দেখবেন যে ফারাজের পায়ে সাদা কেডস ছিলো।




লতিফুর রহমানের মান সম্মান রক্ষার জন্য এখন কোনো না কোনো ভাবে এইটুকু ম্যানেজ হয়েছে যে ফারাজ এর নাম যাতে জঙ্গীর তালিকায় না আসে। আর প্রথম আলো তো প্রচার করে যাচ্ছেই যে ফারাজ কত মহান ছিলো।




এখানে আরেকটি ব্যাপার উল্লেখ্য যে ফারাজ সাম্প্রতিক সময়ে আমেরিকা থেকে এসেছে। ফারাজের পিঠে যে ব্যাগ চাপানো ছিলো সেটি দেখা যাচ্ছে “উইলসন” ব্র্যান্ডের যেটি একটি আমেরিকান ব্র্যান্ডের ব্যাগ। যদিও এই ব্যাগ হয়ত বাংলাদেশেও খুঁজলে পাওয়া যাবে এবং এটা হয়ত আসলে আমরা যুক্তির আদলে ফেলছিও না। তারপরেও শুধু একটু সূত্র দিয়ে রাখলাম যদি ভাবতে সুবিধা হয়।







তবে এত কিছুর পর খটকা এক যায়গাতেই। সেটা হচ্ছে মোট ৭ জঙ্গীর কথা বলা হলেও, লাশ পেলাম ৪ জনের। আর বাকী ৩টা গেলো কই এবং আই এস তাদের ৫ জঙ্গীর ছবি প্রকাশ করেছে। বাকী ২ জনের টা নয় কেন? এর কারন কি এটা হতে পারে যে বাকী দু’জন ধরা পড়েছে বলে তাদের নাম প্রকাশ থেকে বিরত রাখা হয়েছে? কিন্তু প্রকাশিতদের মধ্য থেকে কিন্তু ফারাজের ছবি নেই। তাহলে কি আই এস ভেবেছে ফারাজ ধরা পড়েছে? সে কারনেই কি ফারাজের ছবি প্রকাশ থেকে বিরত থাকা হয়েছে নাকি লতিফুরের পরিবার টাকা দিয়ে ম্যানেজ করেছে এসব? তাদের সাথে কি ভুল কমিউনিকেশন হয়েছে? কেননা তাদের প্রকাশিত ৫ জন জঙ্গীর মধ্যে ৪ জনের পরিচয় পেলেও একজনের ছবির সাথে কোনো লাশের ছবির-ই মিল নেই। ( সূত্রঃ পোর্টাল বাংলাদেশ )



প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক
 

544_delta

FULL MEMBER
Feb 8, 2014
804
-3
674
Country
Pakistan
Location
Pakistan
Another opinion coming claims he too may be member of the militant group.

আমরা এখন আপনাদের যে তথ্য দিতে যাচ্ছি সেটি শুনলে আপনারা হয়ত চমকে উঠবেন কিংবা আপনাদের ভেতরে জেগে উঠবে সন্দেহ। এমনও হতে পারে যে আপনি আমাদের প্রতি ঘৃণায় মুখ কুঁচকাবেন আমাদের মিথ্যেবাদী বলে।

কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা পরিশ্রম করে, ডি কে হোয়াং নামের কোরিয়ান ভদ্রলোকের গোপনে ধারনকৃত ভিডিও দেখে এবং সেটি থেকে কেটে কেটে, প্রতি সেকেন্ডের ভিডিও পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে ফারাজ আইয়াজ হোসেন নামে যে ছেলেটিকে নানা মিডিয়া (বিশেষ করে প্রথম আলো) যে হিরো বানাচ্ছে আসলে এই ফারাজ-ই হচ্ছে গুলশান ম্যাসাকারের জঙ্গীদের মধ্যে একজন জঙ্গী। আমরা আমাদের এই দাবীর পক্ষে যুক্তি দিব, প্রমাণ দেব এবং আমাদের এই দাবী আর যুক্তিগুলোকে আপনাদের সামনে যথাযথভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব।

প্রথম আলোর মালিক লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ আইয়াজ হোসেনের সম্পর্কে যে হিরোসুলভ ও মহিমান্বিত সংবাদ আমরা পাচ্ছি সেটিকে পোর্টাল বাংলাদেশ কোনোভাবেই বিশ্বাস করেনি নানান কারনেই। আর সে না করার পেছনে কারন একটাই। সেই হোয়াং সাহেবের ভিডিও। হোয়াং সাহেবের ভিডিওতে একটি অংশে দেখা যাচ্ছে যে একটি জঙ্গী রেস্টুরেন্টের মূল ঢুকবার কাঁচের দরজার পাশে অবস্থান নিয়েছে এবং কয়েক সেকেন্ডের জন্য সে দরজা দিয়ে উঁকি মারছে। তার পিঠে রয়েছে পেছনে “উইলসন” নামের একটি ব্যাগ।(র‍্যাকস্যাক)







আমরা এই জঙীটির উঁকি দেয়ার ভিডিও আপনাদের প্রথমে নরমাল মোশনে দেখাব। তারপর এই একই ভিডিও-ই আমরা একটু স্লো করে করেছি, তারপর আবার আরেকটু স্লো। তিন বারের এই একই ভিডিওতে আপনারা যাকে দেখবেন তার সাথে ফারাজ আইয়াজ হোসেনের ছবিটি এইবার একটু মেলান।কি চমকে গেলেন? ফারাজের মতই লম্বা, চুলকাটা আর স্পস্ট তারই প্রতিচ্ছবি।

জঙ্গিটির বা দিকের চুল একটু ছাটা আর ডান দিকের চুল কম। সাম্প্রতিক সময়ের চুলের এই স্টাইল-ই ছিলো এই উঁকি মারা জঙ্গীর। এইবার আপনি ফারাজের চুলের স্টাইল দেখুন। কি দেখলেন? মিলে গেছে, তাই তো? এইবার আসুন দেখি ফারাজের উচ্চতা কেমন। উঁকি মারা জঙ্গীটির উচ্চতা কমের পক্ষে ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি থেকে ৬ ফুট। আমাদের অনুমান সেটাই বলে। এইবার আপনি ফারাজের উচ্চতা দেখুন নিচের ছবিতে। আন্দাজ করতে পারবেন আপনিও।




ফারাজ আমেরিকার একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে এখন আর সে ইউনিভার্সিটিতে পড়ে তারই বন্ধু আবন্তি। তাদের আরেক বন্ধু ভারতীয় তারাশি জৈন। এই দুজনকে আসলে মরতেই হোতো কেননা ফারাজ যে জঙ্গী এটা তারা জেনেছিলো এই ভয়াবহ রাতে। একইভাবে ইশরাত আখন্দকে প্রাণ দিতে হয়েছিলো কারন ঘটনাটা ইশরাতও দেখে ফেলেছে। এরা মুক্তি পেলে প্রথম আলোর কর্ণধার নানা লতিফুরের বারোটা বাজবে, সেটা জঙ্গী ফারাজ ঠিকি জানতো। সুতরাং সে ঝুঁকি সে নেবে কেন?

আর বাকী বাংলাদেশী যারা মুক্তি পেয়েছে সেই দলের হোতা যে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির হাসনাত করিম এবং সেও যে জঙ্গীদের সহযোগী এই ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমে ইতিমধ্যেই লেখা হয়েছে। তাই এরা মুক্তি পেলে এই সত্য আর কেউ জানতে পারবে না, এই ব্যাপারে ফারাজ নিশ্চিত ছিলো।

আইন শৃংখলা বাহিনী ৬ জনকে হত্যা করেছে আর এক জঙ্গীকে ধরেছে এই কথা বার বার চাউর করা হলেও আমরা ৫ জনের লাশ দেখেছি আর তাদের সাথে আছে শেফের পোষাক পরা একজনের লাশ। এই শেফ লোকটি জঙ্গী নয় কিন্তু খামাখাই মিডিয়া তাকে জঙ্গী বলে প্রচার করেছে। এই শেফ লোকটির নাম সাইফুল। তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়াচ্ছে? দাঁড়াচ্ছে যে ৬ জঙ্গী হত্যার কথা বল্লেও আসলে লাশ পেলাম ৫ জনের। কিন্তু প্রথম একটি ছবিতে ফারাজের লাশ দেখা গেলেও আরেকটি ছবিতে ফারাজের লাশ পুরোপুরি উধাও। আর প্রথম ছবিতে ফারাজের লাশ চিহ্নিত করা গেছে তার পায়ের সাদা কেডস দেখে। ভিডিওতে আপনারা দেখবেন যে ফারাজের পায়ে সাদা কেডস ছিলো।




লতিফুর রহমানের মান সম্মান রক্ষার জন্য এখন কোনো না কোনো ভাবে এইটুকু ম্যানেজ হয়েছে যে ফারাজ এর নাম যাতে জঙ্গীর তালিকায় না আসে। আর প্রথম আলো তো প্রচার করে যাচ্ছেই যে ফারাজ কত মহান ছিলো।




এখানে আরেকটি ব্যাপার উল্লেখ্য যে ফারাজ সাম্প্রতিক সময়ে আমেরিকা থেকে এসেছে। ফারাজের পিঠে যে ব্যাগ চাপানো ছিলো সেটি দেখা যাচ্ছে “উইলসন” ব্র্যান্ডের যেটি একটি আমেরিকান ব্র্যান্ডের ব্যাগ। যদিও এই ব্যাগ হয়ত বাংলাদেশেও খুঁজলে পাওয়া যাবে এবং এটা হয়ত আসলে আমরা যুক্তির আদলে ফেলছিও না। তারপরেও শুধু একটু সূত্র দিয়ে রাখলাম যদি ভাবতে সুবিধা হয়।







তবে এত কিছুর পর খটকা এক যায়গাতেই। সেটা হচ্ছে মোট ৭ জঙ্গীর কথা বলা হলেও, লাশ পেলাম ৪ জনের। আর বাকী ৩টা গেলো কই এবং আই এস তাদের ৫ জঙ্গীর ছবি প্রকাশ করেছে। বাকী ২ জনের টা নয় কেন? এর কারন কি এটা হতে পারে যে বাকী দু’জন ধরা পড়েছে বলে তাদের নাম প্রকাশ থেকে বিরত রাখা হয়েছে? কিন্তু প্রকাশিতদের মধ্য থেকে কিন্তু ফারাজের ছবি নেই। তাহলে কি আই এস ভেবেছে ফারাজ ধরা পড়েছে? সে কারনেই কি ফারাজের ছবি প্রকাশ থেকে বিরত থাকা হয়েছে নাকি লতিফুরের পরিবার টাকা দিয়ে ম্যানেজ করেছে এসব? তাদের সাথে কি ভুল কমিউনিকেশন হয়েছে? কেননা তাদের প্রকাশিত ৫ জন জঙ্গীর মধ্যে ৪ জনের পরিচয় পেলেও একজনের ছবির সাথে কোনো লাশের ছবির-ই মিল নেই। ( সূত্রঃ পোর্টাল বাংলাদেশ )



প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক
this looks interesting but can you post a translation?
 

idune

ELITE MEMBER
Dec 14, 2008
13,625
-40
12,060
Country
Bangladesh
Location
United States
this looks interesting but can you post a translation?
Short translation:
Faraaz Ayaaz Hossain, who was glorified as hero could be one of the member of terrorist team. By analyzing frame by frame video footage above it was quite clear that Faraaz was guarding the door and working along the terror group. Also, released picture of dead terrorists on the ground (First from right, circled in blue) shown Faraaz was part of the group.

One needs to understand identity and background of Faraaz Hossain; his grandfather (Latifur Rahman) is owner of pro Awami League media group Daily Star, Prothom Alo newspaper. That is why Prothom Alo and Daily star news papers going out of their way to put propaganda spanner and using their media connection to glorify Faraaz. Interestingly enough, one need to consider the fact that Faraaz grandfather Latifur Rahman had allege connection to ULFA seeking independence from india, Latifur Rahman was working as proxy businessman for ULFA and laundered money for ULFA.
 

Nilgiri

BANNED
Aug 4, 2015
24,865
81
46,880
Country
India
Location
Canada
Well that changed the tone of this thread quite drastically.

I guess we will have to wait and see what truth comes out in the end.

We all love to have heroes....but it cannot be at the expense of truth. We owe the victims that much at least.
 

RoadRunner401

SENIOR MEMBER
May 28, 2015
2,940
0
2,930
Country
Pakistan
Location
Canada
The terrorists offered him the opportunity to save his own life and walk away to freedom, but when they refused to let his two friends, Abinta Kabir and Tarishi Jain, leave as well, he elected to stay with them and share their fate rather than save himself.

He refused to abandon them and was found dead the next morning, alongside them, when the commandos raided the compound and brought the siege to a close.
Mr, Reporter how do you know this?

next morning, alongside them, when the commandos raided the compound and brought the siege to a close.
Need explanation please, Commando raided the cafe after the attack has already taken place or they waited until the next morning to raid?
 

bluesky

ELITE MEMBER
Jun 14, 2016
9,957
0
11,221
Country
Bangladesh
Location
Japan
Interestingly enough, one need to consider the fact that Faraaz grandfather Latifur Rahman had allege connection to ULFA seeking independence from india, Latifur Rahman was working as proxy businessman for ULFA and laundered money for ULFA.
Hu----n!! A man earning mney from ULFA association is a BAL member seems ridculuous to me. ULFA was the uncontested territory of BNP and JI. Everything is becoming more and more murky every passing hour. Please refrain from partisan politics and explain us the truths.
 

Maira La

SENIOR MEMBER
Mar 5, 2010
3,065
3
3,641
Country
Bangladesh
Location
Canada
Another opinion coming claims he too may be member of the militant group.

আমরা এখন আপনাদের যে তথ্য দিতে যাচ্ছি সেটি শুনলে আপনারা হয়ত চমকে উঠবেন কিংবা আপনাদের ভেতরে জেগে উঠবে সন্দেহ। এমনও হতে পারে যে আপনি আমাদের প্রতি ঘৃণায় মুখ কুঁচকাবেন আমাদের মিথ্যেবাদী বলে।

কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা পরিশ্রম করে, ডি কে হোয়াং নামের কোরিয়ান ভদ্রলোকের গোপনে ধারনকৃত ভিডিও দেখে এবং সেটি থেকে কেটে কেটে, প্রতি সেকেন্ডের ভিডিও পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে ফারাজ আইয়াজ হোসেন নামে যে ছেলেটিকে নানা মিডিয়া (বিশেষ করে প্রথম আলো) যে হিরো বানাচ্ছে আসলে এই ফারাজ-ই হচ্ছে গুলশান ম্যাসাকারের জঙ্গীদের মধ্যে একজন জঙ্গী। আমরা আমাদের এই দাবীর পক্ষে যুক্তি দিব, প্রমাণ দেব এবং আমাদের এই দাবী আর যুক্তিগুলোকে আপনাদের সামনে যথাযথভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব।

প্রথম আলোর মালিক লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ আইয়াজ হোসেনের সম্পর্কে যে হিরোসুলভ ও মহিমান্বিত সংবাদ আমরা পাচ্ছি সেটিকে পোর্টাল বাংলাদেশ কোনোভাবেই বিশ্বাস করেনি নানান কারনেই। আর সে না করার পেছনে কারন একটাই। সেই হোয়াং সাহেবের ভিডিও। হোয়াং সাহেবের ভিডিওতে একটি অংশে দেখা যাচ্ছে যে একটি জঙ্গী রেস্টুরেন্টের মূল ঢুকবার কাঁচের দরজার পাশে অবস্থান নিয়েছে এবং কয়েক সেকেন্ডের জন্য সে দরজা দিয়ে উঁকি মারছে। তার পিঠে রয়েছে পেছনে “উইলসন” নামের একটি ব্যাগ।(র‍্যাকস্যাক)







আমরা এই জঙীটির উঁকি দেয়ার ভিডিও আপনাদের প্রথমে নরমাল মোশনে দেখাব। তারপর এই একই ভিডিও-ই আমরা একটু স্লো করে করেছি, তারপর আবার আরেকটু স্লো। তিন বারের এই একই ভিডিওতে আপনারা যাকে দেখবেন তার সাথে ফারাজ আইয়াজ হোসেনের ছবিটি এইবার একটু মেলান।কি চমকে গেলেন? ফারাজের মতই লম্বা, চুলকাটা আর স্পস্ট তারই প্রতিচ্ছবি।

জঙ্গিটির বা দিকের চুল একটু ছাটা আর ডান দিকের চুল কম। সাম্প্রতিক সময়ের চুলের এই স্টাইল-ই ছিলো এই উঁকি মারা জঙ্গীর। এইবার আপনি ফারাজের চুলের স্টাইল দেখুন। কি দেখলেন? মিলে গেছে, তাই তো? এইবার আসুন দেখি ফারাজের উচ্চতা কেমন। উঁকি মারা জঙ্গীটির উচ্চতা কমের পক্ষে ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি থেকে ৬ ফুট। আমাদের অনুমান সেটাই বলে। এইবার আপনি ফারাজের উচ্চতা দেখুন নিচের ছবিতে। আন্দাজ করতে পারবেন আপনিও।




ফারাজ আমেরিকার একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে এখন আর সে ইউনিভার্সিটিতে পড়ে তারই বন্ধু আবন্তি। তাদের আরেক বন্ধু ভারতীয় তারাশি জৈন। এই দুজনকে আসলে মরতেই হোতো কেননা ফারাজ যে জঙ্গী এটা তারা জেনেছিলো এই ভয়াবহ রাতে। একইভাবে ইশরাত আখন্দকে প্রাণ দিতে হয়েছিলো কারন ঘটনাটা ইশরাতও দেখে ফেলেছে। এরা মুক্তি পেলে প্রথম আলোর কর্ণধার নানা লতিফুরের বারোটা বাজবে, সেটা জঙ্গী ফারাজ ঠিকি জানতো। সুতরাং সে ঝুঁকি সে নেবে কেন?

আর বাকী বাংলাদেশী যারা মুক্তি পেয়েছে সেই দলের হোতা যে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির হাসনাত করিম এবং সেও যে জঙ্গীদের সহযোগী এই ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমে ইতিমধ্যেই লেখা হয়েছে। তাই এরা মুক্তি পেলে এই সত্য আর কেউ জানতে পারবে না, এই ব্যাপারে ফারাজ নিশ্চিত ছিলো।

আইন শৃংখলা বাহিনী ৬ জনকে হত্যা করেছে আর এক জঙ্গীকে ধরেছে এই কথা বার বার চাউর করা হলেও আমরা ৫ জনের লাশ দেখেছি আর তাদের সাথে আছে শেফের পোষাক পরা একজনের লাশ। এই শেফ লোকটি জঙ্গী নয় কিন্তু খামাখাই মিডিয়া তাকে জঙ্গী বলে প্রচার করেছে। এই শেফ লোকটির নাম সাইফুল। তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়াচ্ছে? দাঁড়াচ্ছে যে ৬ জঙ্গী হত্যার কথা বল্লেও আসলে লাশ পেলাম ৫ জনের। কিন্তু প্রথম একটি ছবিতে ফারাজের লাশ দেখা গেলেও আরেকটি ছবিতে ফারাজের লাশ পুরোপুরি উধাও। আর প্রথম ছবিতে ফারাজের লাশ চিহ্নিত করা গেছে তার পায়ের সাদা কেডস দেখে। ভিডিওতে আপনারা দেখবেন যে ফারাজের পায়ে সাদা কেডস ছিলো।




লতিফুর রহমানের মান সম্মান রক্ষার জন্য এখন কোনো না কোনো ভাবে এইটুকু ম্যানেজ হয়েছে যে ফারাজ এর নাম যাতে জঙ্গীর তালিকায় না আসে। আর প্রথম আলো তো প্রচার করে যাচ্ছেই যে ফারাজ কত মহান ছিলো।




এখানে আরেকটি ব্যাপার উল্লেখ্য যে ফারাজ সাম্প্রতিক সময়ে আমেরিকা থেকে এসেছে। ফারাজের পিঠে যে ব্যাগ চাপানো ছিলো সেটি দেখা যাচ্ছে “উইলসন” ব্র্যান্ডের যেটি একটি আমেরিকান ব্র্যান্ডের ব্যাগ। যদিও এই ব্যাগ হয়ত বাংলাদেশেও খুঁজলে পাওয়া যাবে এবং এটা হয়ত আসলে আমরা যুক্তির আদলে ফেলছিও না। তারপরেও শুধু একটু সূত্র দিয়ে রাখলাম যদি ভাবতে সুবিধা হয়।







তবে এত কিছুর পর খটকা এক যায়গাতেই। সেটা হচ্ছে মোট ৭ জঙ্গীর কথা বলা হলেও, লাশ পেলাম ৪ জনের। আর বাকী ৩টা গেলো কই এবং আই এস তাদের ৫ জঙ্গীর ছবি প্রকাশ করেছে। বাকী ২ জনের টা নয় কেন? এর কারন কি এটা হতে পারে যে বাকী দু’জন ধরা পড়েছে বলে তাদের নাম প্রকাশ থেকে বিরত রাখা হয়েছে? কিন্তু প্রকাশিতদের মধ্য থেকে কিন্তু ফারাজের ছবি নেই। তাহলে কি আই এস ভেবেছে ফারাজ ধরা পড়েছে? সে কারনেই কি ফারাজের ছবি প্রকাশ থেকে বিরত থাকা হয়েছে নাকি লতিফুরের পরিবার টাকা দিয়ে ম্যানেজ করেছে এসব? তাদের সাথে কি ভুল কমিউনিকেশন হয়েছে? কেননা তাদের প্রকাশিত ৫ জন জঙ্গীর মধ্যে ৪ জনের পরিচয় পেলেও একজনের ছবির সাথে কোনো লাশের ছবির-ই মিল নেই। ( সূত্রঃ পোর্টাল বাংলাদেশ )



প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক

That is just bull$hit. Those blurry pictures prove nothing.

That dead terrorist lying on the ground is not Faraaz. He was identified as one of the victims with their throats slit.

All the terrorists were missing for 6 months or more before this attack and their relatives were looking for them. That's not the case with Faraaz.

Mr, Reporter how do you know this?
Pretty simple - 14 hostages survived to tell the story.
 

RoadRunner401

SENIOR MEMBER
May 28, 2015
2,940
0
2,930
Country
Pakistan
Location
Canada
Dhaka Terror attack: police quizzing 2 hostages

Detective Branch of police has been interrogating two persons, including a former university professor, who were held hostage in Friday’s Dhaka terror attack.

Hasnat Karim and Tahmid - two of the 13 hostages rescued in operation Thunder Bolt - were taken into DB custody last night.

The IGP earlier said two hostages were taken into police custody. DB officials later said they are interrogating two detained hostages.

DB Deputy Commissioner Mahbub Alam told the Dhaka Tribune: “We have kept him (Hasnat) in our custody to interrogate about what he had seen during the hostage situation. ”

The detectives went to Hasnat's house and seized his laptop on Sunday.

Hasnat was taken to DB office along with his wife and children for their statements regarding what they had seen during their stay in the restaurant on Friday night.

Tahmid, 22, son of a businessman, had been living in Canada. Recently he came to Bangladesh.

On Friday evening, he went to meet his friends at the cafe.

http://www.dhakatribune.com/crime/2016/jul/04/dhaka-terror-attack-police-quizzing-2-hostages

Interesting.
 

idune

ELITE MEMBER
Dec 14, 2008
13,625
-40
12,060
Country
Bangladesh
Location
United States
Hu----n!! A man earning mney from ULFA association is a BAL member seems ridculuous to me. ULFA was the uncontested territory of BNP and JI. Everything is becoming more and more murky every passing hour. Please refrain from partisan politics and explain us the truths.
Since you live in chander deshe and here to work as Awami spokesperson, it is natural for facts to be "ridculuous". It does not matter what YOU think.

That is just bull$hit. Those blurry pictures prove nothing.

That dead terrorist lying on the ground is not Faraaz. He was identified as one of the victims with their throats slit.

All the terrorists were missing for 6 months or more before this attack and their relatives were looking for them. That's not the case with Faraaz.
You must be eating too much prothom aloo lie. Well, how long you known Farazz and should you be interrogated to find out your and Faraaz activities?

Its time to gather ids who are promoting Farazz and awami mantra here all these people, their background should be investigated.
 

Users Who Are Viewing This Thread (Total: 1, Members: 0, Guests: 1)

Top