What's new

Bangladesh Economy: News & Updates

Nilgiri

BANNED
Aug 4, 2015
24,855
81
46,884
Country
India
Location
Canada
First understand the context before jumping into an argument, just picking up a line and start on blabbering would only show your stupidity and lack of comprehension ability.



We are one of only few emerging economies that has a shortfall of refined oil capacity. There is simply no debate to the need for expanding the oil refining capacity.

Being a petroleum exporting country is not the target now, rather it will be just a bonus. Achieving self-sufficiency is the main issue here.

Land acquisition shouldn't be any problem. Kuwait was allotted a 1000 acre land for that project. All the deep sea port projects in Bangladesh have a dedicated area for oil refining facilities i.e. Payra, Matarbari, Sonadia.

Iajdani said: "Bangladesh could use Indian capacity as we are not the producer of crude anyways"

and you replied:

"Even India is not a producer of crude oil."

Could have just admitted your error and moved on instead of this "understand the context blah blah blah".

India is definitely a crude oil producer. If what we consider to be a small fraction of our needs is several times Bangladeshi total demand....it still does not change we produce a significant quantity....nor does it change why I should correct your statement. India and Bangladesh relative situations are also different...Bangladesh does not produce one drop of crude oil....India has produced as high as 40% of its local needs in the past.

Now you can say India is not a major crude oil producer or a crude oil exporter....and everything is A-OK. Instead you got caught out and now have to resort to claim someone correcting you is being stupid and has lack of comprehension. Funny.

Anyways I agree with the rest of your post. Do you have any maps of the deep water ports you mention and how much area has been assigned to oil refineries? Self sufficiency sounds like a worthwhile objective if the resources and investment are available and the long term economics make sense.
 

Species

SENIOR MEMBER
Oct 12, 2014
3,470
-6
6,185
Country
Bangladesh
Location
Bangladesh
Iajdani said: "Bangladesh could use Indian capacity as we are not the producer of crude anyways"

and you replied:

"Even India is not a producer of crude oil."

Could have just admitted your error and moved on instead of this "understand the context blah blah blah".

India is definitely a crude oil producer. If what we consider to be a small fraction of our needs is several times Bangladeshi total demand....it still does not change we produce a significant quantity....nor does it change why I should correct your statement. India and Bangladesh relative situations are also different...Bangladesh does not produce one drop of crude oil....India has produced as high as 40% of its local needs in the past.

Now you can say India is not a major crude oil producer or a crude oil exporter....and everything is A-OK. Instead you got caught out and now have to resort to claim someone correcting you is being stupid and has lack of comprehension. Funny.

Anyways I agree with the rest of your post. Do you have any maps of the deep water ports you mention and how much area has been assigned to oil refineries? Self sufficiency sounds like a worthwhile objective if the resources and investment are available and the long term economics make sense.

Okay, this is your exact trait of argument - you will desperately look for the word "India", if it's used anywhere in the discussion. If you find one, you will pick up the line without even understanding the context and just go on blabbering, derailing the thread and making the thread just another Bangladesh vs India battleground. Please don't feel the need of replying to this post as I'm not interested in your derailment of this thread as well.
 

Bilal9

ELITE MEMBER
Feb 4, 2014
24,000
7
36,349
Country
Bangladesh
Location
United States
Just for comparison, in the USA roughly 50 Million/month, or 600 million passenger fly domestically in a year.

Please! Now we're comparing USA with India!

There should be some scruples at some point....:rolleyes:

Build a few tall buildings in Navi Mumbai and Gurgaon - then India all of a sudden Amrika ban jaega..?:P

The percentage of people who can afford air services in the US is 99% or so.

In India's case it's less than 20% or so. It's still a 3rd world country.

Those Airport Authority of India website figures are totally made up, sorry to say....
 
Last edited:

Roybot

BANNED
Dec 14, 2010
20,067
-2
44,869
Country
India
Location
Australia
Please! Now we're comparing USA with India!

There should be some scruples at some point....:rolleyes:

Build a few tall buildings in Navi Mumbai and Gurgaon - then India all of a sudden Amrika ban gaya...:P

Are you slow or something? Read doyalbaba's comment on the the previous page.

Haha yeah, totally made up. Airlines are buying more and more new planes based on made up demand. :rofl:
 
Last edited:
Oct 27, 2014
10,315
-5
10,758
Country
Bangladesh
Location
Ukraine
India produces crude, not a huge amount....but about 750 - 800 thousand barrels a day. Thats around 6 times Bangladesh total demand for refined products or around 1/5th of India's total demand.



Not necessarily when you count the capex and land costs of building refineries. You have to build them huge and then be prepared to finance their early years with lots of extra money to ramp up their handling. They would only pay themselves off after many many years and a lot is dependent on the global market prices for refined products as well.

Thats why I feel Bangladesh will never commit to that model given its land scarcity. So iajdani is right for the most part.
I can agree. I studied about Indian oil production off the shore of Mumbai.
 

bluesky

ELITE MEMBER
Jun 14, 2016
15,568
-2
16,927
Country
Bangladesh
Location
Japan
You said India does not produce crude at all. If Bangladesh produced just a sixth of the crude India does, it would be self sufficient in petroleum currently. Its not an insignificant amount especially from a Bangladeshi context.

India's total production was worth 30 - 40 billion USD yearly in the days of oil price over 100 bucks a barrel. I'm not even including the localised economy of refining this amount....but direct crude production only.



It's a balance that has to be made and you have to hedge on what you think the refined oil prices will be when they come online. If they are depressed, it will take longer to recuperate the investment...especially given opportunity cost of excess foreign capacity that could have been imported.

Now it makes sense to expand the existing facilities that you have where land acquisition is easily available/already done (like in the link you posted)...but I have no specific info on how far this can be done repeatedly (depends on surroundings, ownership, land-use, legislation etc). You talk of a unit 3 on top of unit 2...is there a unit 4/unit 5 etc. allocation?

Building a complete new greenfield refinery in Bangladesh is not something I would bet on (eg. the kuwait project you posted)....so at most Bangladesh may meet its domestic refining needs over time....but I doubt it will turn into a major exporter....since no one is going to loan you that kind of money for completely new refineries with the oil prices where they are right now and Bangladesh land scarcity compared to neighbourhood (India).

During Gaddafi era there was a proposal from a Libiyan dignitary to build its own refinery in BD with its own investment so that Libiya can refine crude here for export to far east countries in the east which are long distance from the Libiyan coast in north Africa.

But, like many other proposals from Arabic speaking countries it did not materialize. We cannot say for sure what is waiting in the future, but, it is sure BD cannot become a MAJOR oil exporting country unless it finds oil in its own soil.
 

Arthur

FULL MEMBER
Dec 16, 2014
1,971
0
3,738
Country
Bangladesh
Location
Germany
Home > Economy
Bangladesh records lowest inflation rate in a decade
Staff Correspondent, bdnews24.com

Published: 2016-06-13 23:24:44.0 BdST Updated: 2016-06-13 23:58:17.0 BdST

The inflation rate in the 11 months of the ongoing fiscal ending on June 30 has slightly dropped in Bangladesh, pushing the average inflation to its lowest in a decade.

The point-to-point inflation rate (monthly) fell to 5.45 percent in May.

It means a product or service that cost Tk 100 in May last year now costs Tk 105.45.

On a point-to-point basis, the inflation rate was 5.61 percent in April and 5.65 percent in March.

The average inflation rate in the past one year – from May 2015 to May 2016 – was 5.97 percent.

It was 6.40 percent between May 2014 and May 2015.

Planning Minister AHM Mustafa Kamal disclosed the figures and made the observations while releasing the monthly inflation update of the Bangladesh Bureau of Statistics (BBS) at a media call at the National Economic Council (NEC) on Monday.

He attributed the drop in inflation in May to massive Boro harvest and stability in the prices of essentials in the international market.

Kamal said uninterrupted import and domestic productivity had also played a role in bringing the general inflation down.
At the beginning of current 2015-16 financial year, the government had targeted to bring inflation down to 6.2 percent.

Referring to the inflation rate in May, the minister hoped it will remain under the target rate when this fiscal ends.

He said the overall inflation on a point-to-point basis in rural areas declined to 4.59 percent in May. It was 4.75 percent in April.

The overall inflation in urban areas also declined to 7.06 percent in the period. It was 7.22 percent in April.

In May, food inflation fell to 3.81 percent against 3.84 percent in April.

Non-food inflation also dropped to 7.92 percent last month from April’s 8.34 percent.

Kamal added that the drop in the inflation rate had also led to the increase in wage rates in May. On a point-to-point basis, the wage rate went up 6.07 percent from April’s 6.13 percent.




http://bdnews24.com/economy/2016/06/13/bangladesh-records-lowest-inflation-rate-in-a-decade
 

Nilgiri

BANNED
Aug 4, 2015
24,855
81
46,884
Country
India
Location
Canada
Home > Economy
Bangladesh records lowest inflation rate in a decade
Staff Correspondent, bdnews24.com

Published: 2016-06-13 23:24:44.0 BdST Updated: 2016-06-13 23:58:17.0 BdST

The inflation rate in the 11 months of the ongoing fiscal ending on June 30 has slightly dropped in Bangladesh, pushing the average inflation to its lowest in a decade.

The point-to-point inflation rate (monthly) fell to 5.45 percent in May.

It means a product or service that cost Tk 100 in May last year now costs Tk 105.45.

On a point-to-point basis, the inflation rate was 5.61 percent in April and 5.65 percent in March.

The average inflation rate in the past one year – from May 2015 to May 2016 – was 5.97 percent.

It was 6.40 percent between May 2014 and May 2015.

Planning Minister AHM Mustafa Kamal disclosed the figures and made the observations while releasing the monthly inflation update of the Bangladesh Bureau of Statistics (BBS) at a media call at the National Economic Council (NEC) on Monday.

He attributed the drop in inflation in May to massive Boro harvest and stability in the prices of essentials in the international market.

Kamal said uninterrupted import and domestic productivity had also played a role in bringing the general inflation down.
At the beginning of current 2015-16 financial year, the government had targeted to bring inflation down to 6.2 percent.

Referring to the inflation rate in May, the minister hoped it will remain under the target rate when this fiscal ends.

He said the overall inflation on a point-to-point basis in rural areas declined to 4.59 percent in May. It was 4.75 percent in April.

The overall inflation in urban areas also declined to 7.06 percent in the period. It was 7.22 percent in April.

In May, food inflation fell to 3.81 percent against 3.84 percent in April.

Non-food inflation also dropped to 7.92 percent last month from April’s 8.34 percent.

Kamal added that the drop in the inflation rate had also led to the increase in wage rates in May. On a point-to-point basis, the wage rate went up 6.07 percent from April’s 6.13 percent.




http://bdnews24.com/economy/2016/06/13/bangladesh-records-lowest-inflation-rate-in-a-decade

Obviously BAL is lying! This is a conspiracy along with the growth performance! The truth is being hidden!
 

Bilal9

ELITE MEMBER
Feb 4, 2014
24,000
7
36,349
Country
Bangladesh
Location
United States
Buying? Are you kidding me? Say leasing.

Unless you're an airline like Biman, which 'buys' aircraft ( four 777-300ERs, four 787-8 Dreamliners,and two Next-Generation 737-800s in the short term, more to come....).

From 2014 PM Hasina's visit to Tokyo.


Indian carriers mostly 'lease' aircraft, from the likes of GE leasing.
 

Bilal9

ELITE MEMBER
Feb 4, 2014
24,000
7
36,349
Country
Bangladesh
Location
United States
New Railway equipment for BR.

Meter Gauge DEMU (China)
26360079250_b712fa3ebe_b.jpg


BR flagship train Shuborna Express toward Dhaka. (Meter Gauge Chinese coach + Korean Loco )
25103347075_47f462dc92_b.jpg


Coverage of Indian LHB coach order from Bangladesh in Indian Media (largest ever at RUPEES 370 CRORES)


Indonesian Coach order as well.



What amazes me is that the BR gandoos never even 'thought' about ToT while contemplating these humongous orders. These people don't deserve anything less than a summary full-labor jail term for the graft they committed..

By the way the Indian coaches cost BDT 1 million more (each) compared to Indonesian coaches. Also, since Indonesia is a fellow Muslim country we should buy from them in the future....

Local press comments about sub-par quality in Indian coaches....

এক মাস ধরে ওয়ার্কশপে ভারতের নতুন কোচ ইসমাইল আলী | ২০১৬-০৪-৩০ ইং
inShare
ভারত থেকে প্রথম চালানে ২০টি ব্রড গেজ যাত্রীবাহী কোচ দেশে পৌঁছে গত ২২ মার্চ। এক মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও কোচগুলোর লোড টেস্ট (যাত্রী ধারণক্ষমতা পরীক্ষা) হয়নি। এজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিও সরবরাহ করেনি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভারতের রাইটস লিমিটেড। ফলে চালু করা যাচ্ছে না লাল-সবুজ কোচের নতুন ট্রেন।
দ্বিতীয় চালানে ৪ এপ্রিল দেশে আসে আরো ২০টি কোচ। একই অবস্থা সেগুলোরও। সবগুলো কোচই বসে আছে রেলওয়ের সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।
ভারত থেকে ১২০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় গত বছর জানুয়ারিতে চুক্তি করে রেলওয়ে। এর আওতায় প্রথম চালানে সরবরাহ করা ২০টি কোচের মধ্যে শোভন চেয়ার আটটি, এসি বার্থ ও এসি চেয়ার নয়টি এবং পাওয়ার কার ও গার্ড ব্রেক তিনটি। দ্বিতীয় চালানেও একই ধরনের নয়টি এসি, আটটি নন-এসি ও তিনটি পাওয়ার কার বগি আসে। দর্শনা স্থলবন্দর থেকে কোচগুলো দেশে প্রবেশের পর সরাসরি নেয়া হয় সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।
পরিকল্পনা অনুসারে, ২০ দিনের মধ্যে নতুন কোচগুলোর ট্রায়াল রান (পরীক্ষামূলক চলাচল) ও ধারণক্ষমতা পরীক্ষা সম্পন্ন করার কথা। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে পহেলা বৈশাখ (১৪ এপ্রিল) কোচগুলো দিয়ে ঢাকা-রাজশাহী ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করার কথা ছিল। কিন্তু এখনো কোচগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হয়নি। ফলে কবে নাগাদ নতুন ব্রড গেজ কোচ চালু করা যাবে তা এখনো নিশ্চিত নয়।
সূত্র জানায়, রাইটসের প্রতিনিধিদের অনুপস্থিতিতেই সম্প্রতি প্রথম চালানের ২০টি কোচের ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়। এজন্য সৈয়দপুর ওয়ার্কশপ থেকে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পর্যন্ত কোচগুলো চালানো হয়। তবে ১০০ কিলোমিটার গতিতে চালানোয় কোচগুলো থেকে প্রচণ্ড শব্দ হয়। যদিও এগুলোর ডিজাইন স্পিড ধরা হয়েছে ১২০ কিলোমিটার। এছাড়া লোড টেস্টের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এখনো সরবরাহ করেনি রাইটস লিমিটেড। এতে লোড টেস্ট শুরু করা যাচ্ছে না।
যদিও ইন্দোনেশিয়া থেকে ১০ এপ্রিল দেশে আসা ১৫টি কোচের সঙ্গে প্রয়োজনীয় সব ধরনের যন্ত্রপাতি পাঠিয়েছে দেশটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনকা-পিটি ইন্ডাস্ট্রিজ। প্রথম চালানে ১৫টি মিটার গেজ কোচের মধ্যে রয়েছে ১১টি শোভন চেয়ার, দুটি চেয়ার কোচ, খাবারের গাড়ি ও গার্ডব্রেক, একটি পাওয়ার কার এবং একটি প্রথম শ্রেণীর কোচ। ট্রায়াল রান ও লোড টেস্ট শেষে সেগুলো এখন চলাচলের জন্য প্রস্তুত। শিগগিরই ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে নতুন বিরতিহীন ট্রেনের মাধ্যমে কোচগুলো চালুর পরিকল্পনা রয়েছে।
জানতে চাইলে ভারতীয় ১২০ কোচ ক্রয় প্রকল্পের পরিচালক ও বাংলাদেশ রেলওয়ের চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার (পশ্চিমাঞ্চল) মো. ইফতেখার হোসেন বণিক বার্তাকে বলেন, প্রথমে কোচগুলোর লোড টেস্ট করায় সম্মত হয়নি রাইটস লিমিটেড। এজন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। পরে কয়েক দফা অনুরোধের পর এগুলোর লোড টেস্টে সম্মত হয় তারা। এজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি শিগগিরই বাংলাদেশে পাঠাবে ভারতীয় কোম্পানিটি। এর পর কোচগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হবে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, নতুন কোচ বা ইঞ্জিন কেনার পর সবসময়ই লোড টেস্ট শেষে সেগুলো গ্রহণ করা হয়। ভারতের ক্ষেত্রেও চুক্তিতে তা-ই ছিল। কিন্তু হঠাত্ তা করতে অসম্মতি জানায় তারা। এতে নতুন কোচ পড়ে থাকায় সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে নিয়মিত মেরামত কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে। কারণ ওয়ার্কশপে প্রচুর জায়গা দখল করে আছে নতুন কোচগুলো।
এদিকে ভারতের সরবরাহকৃত নতুন কোচের মান নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। স্টেইনলেস স্টিলের বলা হলেও বাস্তবে এগুলো তুলনামূলক কম দামের ও নিম্নমানের বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। কেউ কেউ কোচগুলোকে স্টেইনলেস স্টিলের পরিবর্তে ভারতীয় স্টিলের বলছেন। এতে কোচগুলোর সর্বোচ্চ আয়ুষ্কাল ৮০ বছর ধরা হলেও কত বছর সেবা পাওয়া যাবে, তা নিয়ে সন্দিহান রেলওয়ের মেকানিক্যাল বিভাগের প্রকৌশলীরা।
তবে কোচের মান নিয়ে কোনো সংশয় নেই বলে মনে করেন বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মো. শামসুজ্জামান। তিনি বলেন, কোচগুলো স্টেইনলেস স্টিলের হওয়ায় গুণগত মান নিয়ে কোনো ধরনের সন্দেহের অবকাশ নেই। এছাড়া নির্মাণকালে রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের অতিরিক্ত চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের নেতৃত্বে একটি টিম ভারতে এক মাস অবস্থান করে। তাদের তত্ত্বাবধানে কোচগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে সঠিকভাবে ও সঠিক মানের কোচই সরবরাহ করা হয়েছে।
যোগাযোগ করা হলে রেলওয়ের অতিরিক্ত চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের (পশ্চিম) ফকির মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, কোচ নির্মাণকালে এক মাস ভারতে অবস্থান করলেও রাইটসের কারখানা থেকে অনেক দূরে ছিল হোটেল। এছাড়া সবসময় কারখানা পরিদর্শনের সুযোগও ছিল না। তবে কোচের মান নিয়ে কোনো সংশয় নেই বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, ভারত থেকে ১২০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৬২৪ কোটি টাকা। এতে কোচপ্রতি ব্যয় হচ্ছে গড়ে ৫ কোটি ২০ লাখ টাকা। আর ইন্দোনেশিয়া থেকে ৫০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় কোচপ্রতি ব্যয় হয় গড়ে ৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। পাশাপাশি ইন্দোনেশিয়া থেকে ১০০টি মিটার গেজ কোচও কেনা হচ্ছে। এতে গড়ে ব্যয় হচ্ছে কোচপ্রতি ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে ১৫০টি কোচ কেনায় ব্যয় পড়বে ৫৬২ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এগুলো কেনায় ২০১৪ সালের নভেম্বরে চুক্তি করা হয়।
 
Last edited:

Arthur

FULL MEMBER
Dec 16, 2014
1,971
0
3,738
Country
Bangladesh
Location
Germany
New Railway equipment for BR.

Meter Gauge DEMU (China)
26360079250_b712fa3ebe_b.jpg


BR flagship train Shuborna Express toward Dhaka. (Meter Gauge Chinese coach + Korean Loco )
25103347075_47f462dc92_b.jpg


Coverage of Indian LHB coach order from Bangladesh in Indian Media (largest ever at RUPEES 370 CRORES)


Indonesian Coach order as well.



What amazes me is that the BR gandoos never even 'thought' about ToT while contemplating these humongous orders. These people don't deserve anything less than a summary full-labor jail term for the graft they committed..

By the way the Indian coaches cost BDT 1 million more (each) compared to Indonesian coaches. Also, since Indonesia is a fellow Muslim country we should buy from them in the future....

Local press comments about sub-par quality in Indian coaches....

এক মাস ধরে ওয়ার্কশপে ভারতের নতুন কোচ ইসমাইল আলী | ২০১৬-০৪-৩০ ইং
inShare
ভারত থেকে প্রথম চালানে ২০টি ব্রড গেজ যাত্রীবাহী কোচ দেশে পৌঁছে গত ২২ মার্চ। এক মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও কোচগুলোর লোড টেস্ট (যাত্রী ধারণক্ষমতা পরীক্ষা) হয়নি। এজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিও সরবরাহ করেনি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভারতের রাইটস লিমিটেড। ফলে চালু করা যাচ্ছে না লাল-সবুজ কোচের নতুন ট্রেন।
দ্বিতীয় চালানে ৪ এপ্রিল দেশে আসে আরো ২০টি কোচ। একই অবস্থা সেগুলোরও। সবগুলো কোচই বসে আছে রেলওয়ের সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।
ভারত থেকে ১২০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় গত বছর জানুয়ারিতে চুক্তি করে রেলওয়ে। এর আওতায় প্রথম চালানে সরবরাহ করা ২০টি কোচের মধ্যে শোভন চেয়ার আটটি, এসি বার্থ ও এসি চেয়ার নয়টি এবং পাওয়ার কার ও গার্ড ব্রেক তিনটি। দ্বিতীয় চালানেও একই ধরনের নয়টি এসি, আটটি নন-এসি ও তিনটি পাওয়ার কার বগি আসে। দর্শনা স্থলবন্দর থেকে কোচগুলো দেশে প্রবেশের পর সরাসরি নেয়া হয় সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।
পরিকল্পনা অনুসারে, ২০ দিনের মধ্যে নতুন কোচগুলোর ট্রায়াল রান (পরীক্ষামূলক চলাচল) ও ধারণক্ষমতা পরীক্ষা সম্পন্ন করার কথা। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে পহেলা বৈশাখ (১৪ এপ্রিল) কোচগুলো দিয়ে ঢাকা-রাজশাহী ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করার কথা ছিল। কিন্তু এখনো কোচগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হয়নি। ফলে কবে নাগাদ নতুন ব্রড গেজ কোচ চালু করা যাবে তা এখনো নিশ্চিত নয়।
সূত্র জানায়, রাইটসের প্রতিনিধিদের অনুপস্থিতিতেই সম্প্রতি প্রথম চালানের ২০টি কোচের ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়। এজন্য সৈয়দপুর ওয়ার্কশপ থেকে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পর্যন্ত কোচগুলো চালানো হয়। তবে ১০০ কিলোমিটার গতিতে চালানোয় কোচগুলো থেকে প্রচণ্ড শব্দ হয়। যদিও এগুলোর ডিজাইন স্পিড ধরা হয়েছে ১২০ কিলোমিটার। এছাড়া লোড টেস্টের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এখনো সরবরাহ করেনি রাইটস লিমিটেড। এতে লোড টেস্ট শুরু করা যাচ্ছে না।
যদিও ইন্দোনেশিয়া থেকে ১০ এপ্রিল দেশে আসা ১৫টি কোচের সঙ্গে প্রয়োজনীয় সব ধরনের যন্ত্রপাতি পাঠিয়েছে দেশটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনকা-পিটি ইন্ডাস্ট্রিজ। প্রথম চালানে ১৫টি মিটার গেজ কোচের মধ্যে রয়েছে ১১টি শোভন চেয়ার, দুটি চেয়ার কোচ, খাবারের গাড়ি ও গার্ডব্রেক, একটি পাওয়ার কার এবং একটি প্রথম শ্রেণীর কোচ। ট্রায়াল রান ও লোড টেস্ট শেষে সেগুলো এখন চলাচলের জন্য প্রস্তুত। শিগগিরই ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে নতুন বিরতিহীন ট্রেনের মাধ্যমে কোচগুলো চালুর পরিকল্পনা রয়েছে।
জানতে চাইলে ভারতীয় ১২০ কোচ ক্রয় প্রকল্পের পরিচালক ও বাংলাদেশ রেলওয়ের চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার (পশ্চিমাঞ্চল) মো. ইফতেখার হোসেন বণিক বার্তাকে বলেন, প্রথমে কোচগুলোর লোড টেস্ট করায় সম্মত হয়নি রাইটস লিমিটেড। এজন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। পরে কয়েক দফা অনুরোধের পর এগুলোর লোড টেস্টে সম্মত হয় তারা। এজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি শিগগিরই বাংলাদেশে পাঠাবে ভারতীয় কোম্পানিটি। এর পর কোচগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হবে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, নতুন কোচ বা ইঞ্জিন কেনার পর সবসময়ই লোড টেস্ট শেষে সেগুলো গ্রহণ করা হয়। ভারতের ক্ষেত্রেও চুক্তিতে তা-ই ছিল। কিন্তু হঠাত্ তা করতে অসম্মতি জানায় তারা। এতে নতুন কোচ পড়ে থাকায় সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে নিয়মিত মেরামত কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে। কারণ ওয়ার্কশপে প্রচুর জায়গা দখল করে আছে নতুন কোচগুলো।
এদিকে ভারতের সরবরাহকৃত নতুন কোচের মান নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। স্টেইনলেস স্টিলের বলা হলেও বাস্তবে এগুলো তুলনামূলক কম দামের ও নিম্নমানের বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। কেউ কেউ কোচগুলোকে স্টেইনলেস স্টিলের পরিবর্তে ভারতীয় স্টিলের বলছেন। এতে কোচগুলোর সর্বোচ্চ আয়ুষ্কাল ৮০ বছর ধরা হলেও কত বছর সেবা পাওয়া যাবে, তা নিয়ে সন্দিহান রেলওয়ের মেকানিক্যাল বিভাগের প্রকৌশলীরা।
তবে কোচের মান নিয়ে কোনো সংশয় নেই বলে মনে করেন বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মো. শামসুজ্জামান। তিনি বলেন, কোচগুলো স্টেইনলেস স্টিলের হওয়ায় গুণগত মান নিয়ে কোনো ধরনের সন্দেহের অবকাশ নেই। এছাড়া নির্মাণকালে রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের অতিরিক্ত চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের নেতৃত্বে একটি টিম ভারতে এক মাস অবস্থান করে। তাদের তত্ত্বাবধানে কোচগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে সঠিকভাবে ও সঠিক মানের কোচই সরবরাহ করা হয়েছে।
যোগাযোগ করা হলে রেলওয়ের অতিরিক্ত চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের (পশ্চিম) ফকির মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, কোচ নির্মাণকালে এক মাস ভারতে অবস্থান করলেও রাইটসের কারখানা থেকে অনেক দূরে ছিল হোটেল। এছাড়া সবসময় কারখানা পরিদর্শনের সুযোগও ছিল না। তবে কোচের মান নিয়ে কোনো সংশয় নেই বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, ভারত থেকে ১২০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৬২৪ কোটি টাকা। এতে কোচপ্রতি ব্যয় হচ্ছে গড়ে ৫ কোটি ২০ লাখ টাকা। আর ইন্দোনেশিয়া থেকে ৫০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় কোচপ্রতি ব্যয় হয় গড়ে ৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। পাশাপাশি ইন্দোনেশিয়া থেকে ১০০টি মিটার গেজ কোচও কেনা হচ্ছে। এতে গড়ে ব্যয় হচ্ছে কোচপ্রতি ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে ১৫০টি কোচ কেনায় ব্যয় পড়বে ৫৬২ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এগুলো কেনায় ২০১৪ সালের নভেম্বরে চুক্তি করা হয়।
যতগুলা মিটারগেজ কোচ এর অর্ডার ছিলো সব বাতিল হইসে,ওদের মিটারগেজ কোচ নাকি খুবি নিম্নমানের? চীন অথবা ইন্দোনেশিয়া থেকে কেনার কথাবার্তা চলতেসে এখন!

বিডিনিউজ এর একটা রিপোর্টে পড়লাম মাস কয়েক আগে কিন্তু লিংক্টা খুঁজে পাচ্ছিনা আর!
 

Bilal9

ELITE MEMBER
Feb 4, 2014
24,000
7
36,349
Country
Bangladesh
Location
United States
যতগুলা মিটারগেজ কোচ এর অর্ডার ছিলো সব বাতিল হইসে,ওদের মিটারগেজ কোচ নাকি খুবি নিম্নমানের? চীন অথবা ইন্দোনেশিয়া থেকে কেনার কথাবার্তা চলতেসে এখন!

বিডিনিউজ এর একটা রিপোর্টে পড়লাম মাস কয়েক আগে কিন্তু লিংক্টা খুঁজে পাচ্ছিনা আর!

হ্যাঁ আমরা হয় চীন বা ইন্দোনেশিয়া থেকে কিনতে হবে . বিবেচনা খরচ এবং মান হিসেবে ভাল.
 

Rokto14

FULL MEMBER
Jan 18, 2012
165
0
65
Country
Bangladesh
Location
Singapore
হ্যাঁ আমরা হয় চীন বা ইন্দোনেশিয়া থেকে কিনতে হবে . বিবেচনা খরচ এবং মান হিসেবে ভাল.
China-r kon company? CRC naki onno company theke kinbe?
 

BDforever

ELITE MEMBER
Feb 12, 2013
14,390
8
28,361
Country
Bangladesh
Location
Bangladesh
এক মাস ধরে ওয়ার্কশপে ভারতের নতুন কোচ ইসমাইল আলী | ২০১৬-০৪-৩০ ইং
inShare
ভারত থেকে প্রথম চালানে ২০টি ব্রড গেজ যাত্রীবাহী কোচ দেশে পৌঁছে গত ২২ মার্চ। এক মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও কোচগুলোর লোড টেস্ট (যাত্রী ধারণক্ষমতা পরীক্ষা) হয়নি। এজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিও সরবরাহ করেনি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভারতের রাইটস লিমিটেড। ফলে চালু করা যাচ্ছে না লাল-সবুজ কোচের নতুন ট্রেন।
দ্বিতীয় চালানে ৪ এপ্রিল দেশে আসে আরো ২০টি কোচ। একই অবস্থা সেগুলোরও। সবগুলো কোচই বসে আছে রেলওয়ের সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।
ভারত থেকে ১২০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় গত বছর জানুয়ারিতে চুক্তি করে রেলওয়ে। এর আওতায় প্রথম চালানে সরবরাহ করা ২০টি কোচের মধ্যে শোভন চেয়ার আটটি, এসি বার্থ ও এসি চেয়ার নয়টি এবং পাওয়ার কার ও গার্ড ব্রেক তিনটি। দ্বিতীয় চালানেও একই ধরনের নয়টি এসি, আটটি নন-এসি ও তিনটি পাওয়ার কার বগি আসে। দর্শনা স্থলবন্দর থেকে কোচগুলো দেশে প্রবেশের পর সরাসরি নেয়া হয় সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।
পরিকল্পনা অনুসারে, ২০ দিনের মধ্যে নতুন কোচগুলোর ট্রায়াল রান (পরীক্ষামূলক চলাচল) ও ধারণক্ষমতা পরীক্ষা সম্পন্ন করার কথা। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে পহেলা বৈশাখ (১৪ এপ্রিল) কোচগুলো দিয়ে ঢাকা-রাজশাহী ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করার কথা ছিল। কিন্তু এখনো কোচগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হয়নি। ফলে কবে নাগাদ নতুন ব্রড গেজ কোচ চালু করা যাবে তা এখনো নিশ্চিত নয়।
সূত্র জানায়, রাইটসের প্রতিনিধিদের অনুপস্থিতিতেই সম্প্রতি প্রথম চালানের ২০টি কোচের ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়। এজন্য সৈয়দপুর ওয়ার্কশপ থেকে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পর্যন্ত কোচগুলো চালানো হয়। তবে ১০০ কিলোমিটার গতিতে চালানোয় কোচগুলো থেকে প্রচণ্ড শব্দ হয়। যদিও এগুলোর ডিজাইন স্পিড ধরা হয়েছে ১২০ কিলোমিটার। এছাড়া লোড টেস্টের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এখনো সরবরাহ করেনি রাইটস লিমিটেড। এতে লোড টেস্ট শুরু করা যাচ্ছে না।
যদিও ইন্দোনেশিয়া থেকে ১০ এপ্রিল দেশে আসা ১৫টি কোচের সঙ্গে প্রয়োজনীয় সব ধরনের যন্ত্রপাতি পাঠিয়েছে দেশটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনকা-পিটি ইন্ডাস্ট্রিজ। প্রথম চালানে ১৫টি মিটার গেজ কোচের মধ্যে রয়েছে ১১টি শোভন চেয়ার, দুটি চেয়ার কোচ, খাবারের গাড়ি ও গার্ডব্রেক, একটি পাওয়ার কার এবং একটি প্রথম শ্রেণীর কোচ। ট্রায়াল রান ও লোড টেস্ট শেষে সেগুলো এখন চলাচলের জন্য প্রস্তুত। শিগগিরই ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে নতুন বিরতিহীন ট্রেনের মাধ্যমে কোচগুলো চালুর পরিকল্পনা রয়েছে।
জানতে চাইলে ভারতীয় ১২০ কোচ ক্রয় প্রকল্পের পরিচালক ও বাংলাদেশ রেলওয়ের চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার (পশ্চিমাঞ্চল) মো. ইফতেখার হোসেন বণিক বার্তাকে বলেন, প্রথমে কোচগুলোর লোড টেস্ট করায় সম্মত হয়নি রাইটস লিমিটেড। এজন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। পরে কয়েক দফা অনুরোধের পর এগুলোর লোড টেস্টে সম্মত হয় তারা। এজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি শিগগিরই বাংলাদেশে পাঠাবে ভারতীয় কোম্পানিটি। এর পর কোচগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হবে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, নতুন কোচ বা ইঞ্জিন কেনার পর সবসময়ই লোড টেস্ট শেষে সেগুলো গ্রহণ করা হয়। ভারতের ক্ষেত্রেও চুক্তিতে তা-ই ছিল। কিন্তু হঠাত্ তা করতে অসম্মতি জানায় তারা। এতে নতুন কোচ পড়ে থাকায় সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে নিয়মিত মেরামত কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে। কারণ ওয়ার্কশপে প্রচুর জায়গা দখল করে আছে নতুন কোচগুলো।
এদিকে ভারতের সরবরাহকৃত নতুন কোচের মান নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। স্টেইনলেস স্টিলের বলা হলেও বাস্তবে এগুলো তুলনামূলক কম দামের ও নিম্নমানের বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। কেউ কেউ কোচগুলোকে স্টেইনলেস স্টিলের পরিবর্তে ভারতীয় স্টিলের বলছেন। এতে কোচগুলোর সর্বোচ্চ আয়ুষ্কাল ৮০ বছর ধরা হলেও কত বছর সেবা পাওয়া যাবে, তা নিয়ে সন্দিহান রেলওয়ের মেকানিক্যাল বিভাগের প্রকৌশলীরা।
তবে কোচের মান নিয়ে কোনো সংশয় নেই বলে মনে করেন বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মো. শামসুজ্জামান। তিনি বলেন, কোচগুলো স্টেইনলেস স্টিলের হওয়ায় গুণগত মান নিয়ে কোনো ধরনের সন্দেহের অবকাশ নেই। এছাড়া নির্মাণকালে রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের অতিরিক্ত চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের নেতৃত্বে একটি টিম ভারতে এক মাস অবস্থান করে। তাদের তত্ত্বাবধানে কোচগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে সঠিকভাবে ও সঠিক মানের কোচই সরবরাহ করা হয়েছে।
যোগাযোগ করা হলে রেলওয়ের অতিরিক্ত চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের (পশ্চিম) ফকির মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, কোচ নির্মাণকালে এক মাস ভারতে অবস্থান করলেও রাইটসের কারখানা থেকে অনেক দূরে ছিল হোটেল। এছাড়া সবসময় কারখানা পরিদর্শনের সুযোগও ছিল না। তবে কোচের মান নিয়ে কোনো সংশয় নেই বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, ভারত থেকে ১২০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৬২৪ কোটি টাকা। এতে কোচপ্রতি ব্যয় হচ্ছে গড়ে ৫ কোটি ২০ লাখ টাকা। আর ইন্দোনেশিয়া থেকে ৫০টি ব্রড গেজ কোচ কেনায় কোচপ্রতি ব্যয় হয় গড়ে ৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। পাশাপাশি ইন্দোনেশিয়া থেকে ১০০টি মিটার গেজ কোচও কেনা হচ্ছে। এতে গড়ে ব্যয় হচ্ছে কোচপ্রতি ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে ১৫০টি কোচ কেনায় ব্যয় পড়বে ৫৬২ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এগুলো কেনায় ২০১৪ সালের নভেম্বরে চুক্তি করা হয়।
read it, chi chi chi. taka halal kore kha bhai :disagree:
 

Users Who Are Viewing This Thread (Total: 1, Members: 0, Guests: 1)


Top Bottom