Rising middle class in Bangladesh

Discussion in 'Bangladesh Defence Forum' started by CaPtAiN_pLaNeT, Aug 7, 2012.

Thread Status:
Not open for further replies.
  1. CaPtAiN_pLaNeT

    CaPtAiN_pLaNeT SENIOR MEMBER

    Joined:
    May 10, 2010
    Messages:
    7,685
    Ratings:
    +0 / 4,722 / -0
    thinking loud
    Rising middle class in Bangladesh

    http://www.thefinancialexpress-bd.com/more.php?news_id=139310&date=2012-08-07

    Mamun Rashid

    All the restaurants located in 'star' hotels, in residential areas or the ones along city roads are having brisk business this Ramadan as far as the sale of ifter items is concerned. Shopping malls are already awake. Be it Agora, Nandan, Dhali, Lavender, Meena Bazar or Shawpno, all superstores are packed with stuff and there are increasing number of people flocking in. The expansion of `KFC', Pizza Hut, Nandoo's or Movenpick are visible clearly. More and more students trying to get themselves admitted to English medium schools, private colleges and universities. Banks are coming up with more `millionaire' like products. There are around four thousand ATMs (Automated Teller Machines) put up by the banks. Move is underway to put up another 200 thousand ATMs in next 10/15 year by a foreign operator. Around 30 million people are using internet per day. I don't want to talk about cell phone here, as it is being used by everyone now and the number has increased to beyond 90 million. Going out for `vacation' is increasingly becoming a usual exercise. More and more ladies are visiting the 'beauty parlours' even in the sub-district levels, more young people are joining the 'fitness' club and all the parks or playgrounds are full in the morning with 'health freak' people. Eating out at least once a month is becoming a regular scene in the urban places. Be it 'Apollo', United, Square or Labaid- all these hospitals' outpatient departments are full, so are their inpatient cabins or emergency rooms. Who are these people? Off the cuff answer is - they all belong to the `middle class'- the fast moving citizenry in Bangladesh. What is their size in the economy, if it is 15 percent of the populace, you are talking of almost 22 million people. With an average family size of 5, you are talking of more than 4 million families. What could be their earning per capita? Our primary estimates put it in the range of USD 10 to 15 thousand a year. What is their source of income? - Salary, small or medium sized businesses, earnings from land sales or real estate rents, or investment in capital market.

    Shopping in the `posh' malls, going out to `Kolkata', Bangkok or Kuala Lumpur or Singapore, eating out in the costly restaurants, their sons and daughters owning a PC and hanging out in the lounges, getting admitted in costly private schools, colleges or universities-these seem to be common scenes now a days. Increasing number of people own more than one car or even one apartment.

    The middle class has risen and said "yes" to the good life. There has been a definite shift in the financial capacity as well as attitude towards life in the people of the capital and maybe a couple of other major cities during the last couple of years.

    Economic definition of demand suggests that you have to have ability plus willingness to call it demand for a product or service. As for the ability part, Gross National Income (GNI) converted to international dollars using purchasing power parity rates is a reasonable measure of real purchasing power of a population.

    Bangladesh's PPP(purchasing power parity) GNI per capita has steadily increased. In 2009, the number reached 1,580 in current international dollar with 5-year Compound Annual Growth Rate (CAGR) at about 9%. Polarization has been a part of our economy for a long time, so not everyone can be judged by this number. Besides, there are numbers beyond statistics also.

    Call it a layman's approach or a more practical one; let us look at the number of private cars in town. From June 2003 to June 2011, about 400,000 motor cars, jeeps and micro-buses were registered with Bangladesh Road Transport Authority (BRTA) in Dhaka. Fast rising fuel cost, grid-locked roads and import duties could not limit the number of privately owned vehicles despite the government's implicit discouragement toward private transport sector.

    People are increasingly spending more for food, clothes and life style management. USD 6.0 billion equivalent reportedly change hands during the month of Ramadan alone. This time, the spending spree was observed even in remote northern or southern districts. Multi-storied shopping malls are coming up at upazila (sub district) level.

    "The rise in overseas spending by the middle class and cash transfer to foreign countries have listened the supply-demand gap in the green-back to an all-time high," said a recent newspaper article. Statistics and reasonable estimates suggest that there are more than 1.5 million people in the capital city who fall under the annual income bracket of $10,000 to $15,000.

    Although the number of people with greater than Tk.10 million wealth has been reported at 35,000 plus, the real number could be much larger. The flourishing number of private schools, private universities, private medical facilities, expensive restaurants and parlours all support the assumption.

    What is the profile of this segment? The popular misconception is that they are the multinational corporation (MNC) crowd -- freshly coming out of business schools -- forming a joint-income family, and purchasing a car and a small apartment within 5 years of graduation.

    In reality, the MNC crowd is being marginalized by the new entrants in the Gulshan/Banani/Baridhara area in Dhaka. The segment I am talking about are the proprietors of small and medium businesses, who had a piece of land in a good location in mainly Dhaka, Chittagong Sylhet , Khulna or even Mymensingh or made huge profits in the stock market and decided to lead a comfortable life using the profit generated from real estate price hike and share market boost-up. They are moving from other areas of the city or other cities to live near their children's schools. Owning a car is a must now for the children's and the earning members' transport. They are the rising middle class of the country.

    A generation-wise upward shift has taken place as well. The 2nd generation of many lower-middle income households has shifted to middle-income or upper-middle income bracket.

    The psychological shift has taken place somewhat silently. "I have to live for others and not for myself: that's middle-class morality" -- George Bernard Shaw's definition holds no more. From a savings-oriented and conservative culture, we have moved towards a more life-style oriented culture. Birthdays, seeing each other days for the girl or the boy, anniversaries- people just wait for an `excuse' to go for a big event or `halla -kalla' to be organized.

    Just to clarify here, I am basing the profile more on the expenditure structure than on the earnings structure. As long as the positive attitude towards materialism is not putting pressure on the corruption index, why feel bad in leading a comfortable life. While we have not exactly made significant progress in the corruption indices, we have not gone down in the score either.

    A sizeable middle class with strong purchasing power and appetite for amenities is good news for business. It is one of the indicators that say an economy will flourish. The business houses get the signal that there is a viable target market for their product, which makes it worthwhile to penetrate the market. This segment is much higher than the entire population of some African or East European countries in terms of purchasing power and expenditure pattern or nearer to the percapita income of `Dubai or Singapore' city dwellers. KFC and Pizza Hut in Dhaka are much larger than the same franchises in our neighbouring countries in South Asia. Starbucks, Seven Eleven and Carrefour are reportedly mulling entering Bangladesh.

    How far these `middle- class' can protect or carry forward the age old social fabric of the nation may be a big question mark and the answer may even and up as "who cares?". They may not be the `Himu' of Humayun Ahmed, or may not take arms if a `1971' like necessity comes up or stand up to protect Bengali language or culture like 1952, they must however represent the `face' of an emerging country like Bangladesh and increasingly a `digital' and responsive Bangladesh.

    (Mamun Rashid is a banker and economic analyst. E mail: mamun1961@gmail.com)
     
  2. M_Saint

    M_Saint FULL MEMBER

    Joined:
    Nov 11, 2008
    Messages:
    1,779
    Ratings:
    +0 / 1,045 / -0
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    United States
    Rather article should be named as 'Rising RAWAMY chor/Thieve's class' as the reality seems completely different in the follwing article.....


    মন্তব্য প্রতিবেদন : মধ্যবিত্তের দিনযাপন

    মাহমুদুর রহমান



    ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ যে ইশতেহারটি প্রকাশ করেছিল, তার বাহারি নাম দিয়েছিল ‘দিনবদলের সনদ’। স্লোগানটি অবশ্য ধার করা। আওয়ামী লীগের অনেক আগেই বহুজাতিক মোবাইল কোম্পানি, বাংলালিংক এই দিনবদলের স্লোগান দিয়ে বিজ্ঞাপন তৈরি করে প্রচার চালাচ্ছিল। বাংলালিংকের বিজ্ঞাপনের সেই ভাষা আজও অবিকৃত রয়েছে। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা বাংলালিংকের বিজ্ঞাপন দ্বারাই উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন কী না, সে তথ্য আমার জানা নেই। তবে দলটির দিনবদল ও ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রচার যে সেই সময় আমাদের তরুণ ভোটারদের যথেষ্ট আকর্ষণ করতে পেরেছিল, এতে কোনো সন্দেহ নেই।
    জনগণের জন্য দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো মহাজোট সরকারের শাসনের চার বছরের মাথায় চাকচিক্যময় উভয় কথাই ঠাট্টা-তামাশা ও বিদ্রূপের বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে। এক-এগারোর সরকারের সময় যেমন ‘সংস্কার’ শব্দটিকে পচানো হয়েছিল। গত পৌনে চার বছরে দেশ ও জনগণের দিনবদল কতখানি হয়েছে তার হিসাব বোধহয় ভোটাররা ভালোমতোই করতে শুরু করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ভীতির পেছনে জনগণের এই হিসাব-নিকাশের ব্যাপারটিই কাজ করছে বলে আমার ধারণা। থাকগে, আজ আর দেশের রাজনীতি নিয়ে লেখার বিশেষ একটা ইচ্ছে নেই। গত ক’দিনে সাধারণ জনগণের অবস্থা জানার সুযোগ হয়েছে। চারপাশের সেই পরিচিত মধ্যবিত্ত শ্রেণীর দিনবদল কেমন হয়েছে, তারই খণ্ডচিত্র আজকের মন্তব্য-প্রতিবেদনে তুলে ধরার চেষ্টা করব। তিনটি পরিবারের বেঁচে থাকার সংগ্রামের গল্প বলে তারপর অর্থনীতি সংক্রান্ত সংক্ষিপ্ত তাত্ত্বিক আলোচনায় যাব।
    * শেয়ারবাজারে সর্বস্ব হারানো এক অচেনা তরুণ হঠাত্ করেই গত সপ্তাহে পত্রিকা অফিসে এসে আমার সাক্ষাত্প্রার্থী হলো। অনুমতি পেয়ে যে ঘরে ঢুকল, তার দিকে তাকিয়েই জীবনযুদ্ধে বিপর্যস্ত এক মধ্যবিত্ত তরুণকে দেখতে পেলাম। গালে কয়েক দিনের না কামানো দাড়ি, চোখে চশমা, গায়ের রঙ আমার মতোই কৃষ্ণবর্ণ। মায়াময় মুখ দেখে আন্দাজ করলাম, বয়স তিরিশের কাছাকাছি। ভূমিকা না করেই বলল, কোনো উপকার হবে না জেনেও শুধু মনের কথাগুলো বলে হালকা হওয়ার জন্য আপনার অফিসে এসেছি। ছেলেটির সোজাসাপটা কথা শুনে আমার নিজের ওই বয়সের কথা মনে পড়ে গেল। পরের আধঘণ্টা ধরে ওর কথা শুনলাম। তিন ভাইয়ের মধ্যে তরুণটি মেজো। বৃদ্ধ বাবা জীবিত, মাও আছেন। বিয়ে করেছে দুই বছর আগে, তবে এখনও কোনো সন্তান হয়নি। বড় ভাই বিদেশে কর্মরত, আর ছোট ভাই কলেজে পড়ে।
    ২০০৯ সালে সরকার ঘনিষ্ঠ লোকজনের নানারকম কারসাজিতে শেয়ারের দাম যখন প্রতিদিনই লাফিয়ে বাড়ছে সেই সময় নিজের সামান্য পুঁজি এবং বিদেশ থেকে বড় ভাইয়ের পাঠানো টাকা নিয়ে শেয়ারবাজারে ঢুকেছিল। এর পরের কাহিনী আন্দাজ করতে আমার অসুবিধে হয়নি। ক্রমান্বয়ে পুঁজি শেষ হয়েছে, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোতে দেনার পরিমাণ বেড়েছে। একসময় ঢাকায় বাড়িভাড়া দিয়ে সংসার চালাতে না পেরে স্ত্রীকে দেশে পাঠিয়েছে। ছেলেটির ঠাঁই হয়েছে মুগদাপাড়ার এক মেসে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে সে এখনও যাতায়াত করে পুঁজির কিছু অংশ অন্তত ফিরে পাওয়ার ব্যর্থ আশায়। রিকশা চড়ার বিলাসিতা ত্যাগ করেছে, বাসের ভাড়াও সবসময় জোগাড় হয় না। তখন হাঁটা ছাড়া উপায় থাকে না। মেসের টাকাও বাকি পড়তে শুরু করেছে।
    এত হতাশার মাঝে আত্মহত্যার কথাও যে মাথায় আসেনি তা নয়। কিন্তু, স্ত্রীর ভালোবাসা আর মায়ের মমতা সংসারে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছে। এর মধ্যে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছিল। লুটেরাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার অপরাধে গ্রেফতার হয়ে সাহারা খাতুনের পুলিশের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছে। আর এখন তো প্রতিবাদ জানানোরও কোনো উপায় নেই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঢাকা স্টক এক্সেচেঞ্জের সামনে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের দাঁড়াতে পর্যন্ত দিচ্ছে না। শেয়ারবাজার থেকে কারসাজির মাধ্যমে টাকা লুটে যারা সম্পদের পাহাড় গড়েছে, সরকার তাদের কিছু না বললেও প্রতিবাদকারীদের ছবি সিসি ক্যামেরায় তুলে রাখা হচ্ছে। প্রতারণার কাহিনী বর্ণনার সময় ছেলেটির চোখে কখনও অশ্রু, কখনও আগুন দেখতে পাচ্ছিলাম। আমার কাছে সর্বস্ব হারানো তরুণটির শেষ প্রশ্ন ছিল, সরকার পরিবর্তন হলে আমরা পুঁজি ফেরত পাব তো? মনটা বড় খারাপ করে দিয়ে তরুণটি বিদায় নিল। রোজার দিন বলে ছেলেটিকে এক কাপ চাও খাওয়াতে পারলাম না।
    * আমার খালা সাভারে থাকেন। একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে সাধারণ চাকরি করতেন। এখন অবসর জীবনযাপন করলেও পুরনো সহকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেন। সেই সহকর্মীদের মধ্যে একজন আবার তার প্রতিবেশী। ভদ্রলোকের চারটি বিবাহযোগ্য কন্যা এবং অসুস্থ স্ত্রী কিডনি রোগে শয্যাশায়ী। তিনি যে বেতন পান, তাতে ছয়জনের সংসার চালানোই মুশকিল। এদিকে স্ত্রীকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য নিয়মিত ডায়ালিসিস করাতে হয়। সেই ব্যয় সবসময় বহন করা তার পক্ষে সম্ভব হয় না। তাই স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা অতিরিক্ত খারাপ হয়ে পড়লেই কেবল তাকে ঢাকায় এনে ডায়ালিসিস করানো হয়। নিয়মিত চিকিত্সার অভাবে হয়তো ভদ্রমহিলা আরও দ্রুত মৃত্যুর দিকে যাচ্ছেন। কিন্তু, অসহায় স্বামীর কোনো উপায় নেই। ভদ্রলোকেরও শরীর ভেঙে পড়ছে। একদিন আমার খালা ভদ্রলোকের চোখে পড়ার মতো শরীরের ওজন কমার ব্যাপারে উদ্বেগ জানালে তিনি বললেন, দিনের পর দিন কোনো প্রোটিন জোটে না, দুর্মূল্যের বাজারে ১০ টাকা দিয়ে একটা ডিম যে খাব তারও তো উপায় নেই। দুধ তো কেবল স্বপ্নেই জোটে, শাক-পাতা খেয়ে আর কতটা ভালো থাকা যায়। নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের সংসার সরকারের মন্ত্রীদের ভুয়া প্রবৃদ্ধির গালগল্পে আর চালানো যাচ্ছে না।
    * ক’দিন আগে আমার এক ভাগ্নি তার স্বামীকে নিয়ে দেখা করতে বাসায় এসেছিল। একান্নবর্তী পরিবার হলেও ওদের সংসার খুব একটা বড় নয়। ভাগ্নির বিধবা শাশুড়ি একসময় ব্যাংকে চাকরি করতেন, বর্তমানে অবসরে। ভাগ্নিজামাই ছেলেটিও একটি সরকারি ব্যাংকে চাকরি করে। আমার ভাগ্নির দেবর সম্প্রতি বিয়ে করেছে। ছেলেটি বিভিন্ন জায়গায় সাপ্লাইয়ের ব্যবসা করে। সব মিলে পাঁচজনের সংসার। ২০০৭ পর্যন্ত সংসারে প্রাচুর্য না থাকলেও অনটন ছিল না। মায়ের পেনশনের টাকা আর দুই ছেলের রোজগার দিয়ে মধ্যবিত্ত পরিবারের ছোটখাটো সাধ-আহ্লাদও পূরণ হয়ে যেত। গত পাঁচ বছরে বড় ছেলের ব্যাংকের চাকরিতে বেতন যতটুকু বেড়েছে, জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে তার কয়েকগুণ। দেশে সার্বিক ব্যবসায় মন্দার কারণে ছোট ছেলের সাপ্লাই ব্যবসা থেকে আয় অনেক কমে গেছে। মাত্র পাঁচজনের সংসার চালাতেই এখন হিমশিম অবস্থা।
    ভাগ্নিজামাই ছেলেটি বলল, বাজারে গেলে ৫০০ টাকা নিমেষে শেষ হয়ে যায়। অথচ আগে ৫০০ টাকায় পুরো বাজার হয়ে যেত। রোজার মাসে ইফতারির জন্য খাবার কেনাও কঠিন হয়ে যাচ্ছে। এক হালি কলার দাম ৫০ টাকা। কিনব কী করে? উপায় না দেখে কিছুদিন হলো আমার ভাগ্নি বাসার কাছেই একটা স্কুলে চাকরি নিয়েছে। যদি তাতে সংসারের কিছুটা সাশ্রয় হয়। এত কষ্টের মধ্যেও বাংলাদেশের মধ্যবিত্তের লৌকিকতা ছাড়তে পারেনি। আমার, মায়ের এবং আমার স্ত্রীর জন্য ঈদের উপহার কিনে নিয়ে এসেছে। এই দুর্দিনে অপচয়ের জন্য দু’জনই হাসিমুখে আমার বকা শুনে বিদায় নিল। আনন্দ-বেদনা মিশ্রিত এই মধ্যবিত্তের জীবন।
    আর ক’দিন পরেই মুসলমানদের সবচেয়ে আনন্দের ধর্মীয় উত্সব ঈদুল ফিতর। যে তিনটি মধ্যবিত্ত সংসারের কথা লিখলাম, তাদের কাছে সেই ঈদ আনন্দের চেয়ে বেশি না পাওয়ার বেদনার। ধারণা করছি, এ দেশের শতকরা পঁচানব্বই ভাগ পরিবারের চিত্র এর থেকে ভিন্ন কিছু নয়। মহাজোট সরকার এ পর্যন্ত দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর জন্য যে প্রকৃতির দিনবদল নিয়ে এসেছে, তার সঙ্গে জনগণের প্রত্যাশার কোনো মিল নেই। অন্যান্য পুঁজিবাদী রাষ্ট্রের মতো বাংলাদেশেও সম্পদের অসম বণ্টন রয়েছে। কিন্তু বিগত চার বছরে যেভাবে শাসকগোষ্ঠীর কিছু পরিবারের কাছে রাষ্ট্রের সিংহভাগ সম্পদ পুঞ্জীভূত হয়েছে, বিশ্বে তার তুলনা খুঁজে পাওয়া কঠিন হবে। লোকমুখে শুনেছি, সে রকম একটি পরিবারের বাসায় বিশেষ ধরনের পর্দা লাগানোর জন্য সিঙ্গাপুর থেকে বিদেশি কারিগর উড়িয়ে আনা হয়। তাদের রাখা হয় ঢাকার বিলাসবহুল ওয়েস্টিন হোটেলে। শেয়ারবাজার লুণ্ঠন, কুইক রেন্টাল ও পদ্মা সেতু মার্কা প্রকল্প থেকে এরা সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলেছে। এদের জন্য দিনবদল হয়েছে বৈকি! এই গোষ্ঠী আগে বিদেশে বাড়ি, গাড়ি কিনে রাখত, এখন নাকি ব্যক্তিগত বিমান কেনে।
    অন্যদিকে নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা দেশের সার্বিক অবস্থায় চোখে অন্ধকার দেখছে। বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ হ্রাস পাওয়ায় চাকরির বাজার সঙ্কুচিত হয়েছে। ফলে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা কেবল বেড়েই চলেছে। যারা চাকরি করছেন মূল্যস্ফীতির কারণে তাদের নীট আয় দিন দিন কমছে। প্রলোভনের ফাঁদ পেতে শেয়ারবাজারের লুটেরারা অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারের সঞ্চয়ই লোপাট করে দিয়েছে। অথচ সংসারের ব্যয় বাড়ছে। কুইক রেন্টালের ভর্তুকির ক্ষুধা মেটাতে মহাজোট সরকার এ যাবত পাঁচ দফা বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করেছে। একটি মধ্যবিত্ত পরিবারকে দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ পর্যন্ত বিদ্যুতের বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে। ঈদের পর বিদ্যুতের দামের ষষ্ঠ দফা বৃদ্ধির ঘোষণা আসতে যাচ্ছে। বিদ্যুত্ খাতে দুর্নীতির সব বোঝা অসহায় জনগণের ঘাড়ে তুলে দিতে দুর্নীতিগ্রস্ত ক্ষমতাসীন মহল কোনোরকম লজ্জাবোধ করছে না।
    আওয়ামী লীগের এবারের শাসনামলে ৩ দফায় জ্বালানি তেলের দাম এবং ৪ দফায় পরিবহন ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। সিএনজিচালিত অটোরিকশার বর্তমান ভাড়া মধ্যবিত্তের সাধ্যের বাইরে। তাই আগে যারা সিএনজিতে চড়তেন, তারা এখন বাসে উঠছেন। খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কথা আগেই উল্লেখ করেছি। খাদ্য বহির্ভূত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েছে আরও বেশি। এইজাতীয় পণ্য নিয়ে সচরাচর আলোচনা কম হলেও মধ্যবিত্তের বাজেটের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ ব্যয় হয় এগুলো কিনতেই। প্রতিটি পরিবারেই সাবান, টুথপেস্ট, শ্যাম্পু, শিক্ষা উপকরণ এবং এই ধরনের অন্যান্য পণ্যের প্রয়োজন হয়। আমি দীর্ঘদিন যেহেতু বাজারে যাই না, তাই এসব পণ্যের দাম সম্পর্কে কোনো ধারণা ছিল না। আজকের লেখার রসদের জন্য অর্থনীতি বিটের সাংবাদিকদের শরণাপন্ন হতে হয়েছে। ওরাই আমাকে বর্তমান বাজারমূল্য জোগাড় করে দিয়েছে।
    ২০০৯ সালে ৫০ গ্রামের তিব্বত সাবানের দাম ছিল ১৫ টাকা, যা এখন ২৬ টাকা। ক’দিন আগের ৬০ টাকার জনসন পাউডারের বর্তমান মূল্য ৯৫ টাকা। টুথপেস্ট, নারকেল তেল, ক্রিম ইত্যাদির দামও বেড়েছে পাল্লা দিয়ে। সরকারপ্রধান হয়তো দাবি করতে পারেন, এগুলো সব উচ্চবিত্তের ব্যবহার্য পণ্য। অবশ্য কোনো উচ্চবিত্ত তিব্বত সাবান ব্যবহার করেন বলে আমার জানা নেই। তারা সব বিদেশি ব্র্যান্ডের সাবানের গ্রাহক। দাম নিয়ে মাথা ঘামানোর সময় সেইসব বিত্তবানের নেই। যাই হোক, সব থেকে ভয়াবহ অবস্থা শিশুখাদ্য এবং ওষুধের বাজারে। পরিবারে শিশু থাকলে শিশুখাদ্য কিনতেই হয়। আর অসুখ হলে ওষুধ ছাড়া চলে না। গত ছয় মাসে উভয় পণ্যশ্রেণীতেই মূল্য বৃদ্ধির পরিমাণ প্রায় শতভাগ। মূল্যবৃদ্ধির এই প্রতিযোগিতায় বাড়িওয়ালারাই-বা পিছিয়ে থাকবেন কেন? মধ্যবিত্তের তো আর নিজের বাড়ি থাকে না। অতএব ফি-বছর বাড়িভাড়া লাফিয়ে বাড়ছে।
    প্রধানমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী সবাই চালের দাম স্থিতিশীল থাকায় সাফল্যের ডংকা বাজাচ্ছেন। ২০০৮ সাল থেকেই প্রকৃতি অনুকূল থাকায় আল্লাহ্র রহমতে দেশে প্রতি বছর ধানের উত্পাদন উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে। ফলে মধ্যবিত্তের চাল নাজিরশাইল এবং মিনিকেট তাদের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যেই আছে। কিন্তু, এই সময়ের মধ্যে বাকি সব খাদ্য ও খাদ্যবহির্ভূত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির রেকর্ড তৈরি হয়েছে। সেইসঙ্গে যুক্ত হয়েছে বিদ্যুত্, গ্যাস, পানির মতো রাষ্ট্রীয় খাতে প্রতিটি সেবার কয়েকগুণ দাম বাড়ানো। সবমিলে মধ্যবিত্তের যত্সামান্য সঞ্চয়ে হাত পড়েছে। যাদের সঞ্চয় এর মধ্যেই শেয়ারবাজারে ডুবে গেছে, তাদের অবশ্য সঞ্চয় ভেঙে বেঁচে থাকার সুযোগও নেই। আমাদের অর্থমন্ত্রী এবারের বাজেট ঘোষণার সময় বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষার যে বইটি প্রকাশ করেছেন, সেখানেই জাতীয় সঞ্চয় ভেঙে খাওয়ার প্রমাণ মিলবে। উন্নয়নশীল দেশে যেখানে জিডিপির হিসাবে প্রতি বছর জাতীয় সঞ্চয় কিছুটা হলেও বাড়া উচিত, সেখানে বর্তমান সরকারের আমলে সঞ্চয় কমেছে। মধ্যবিত্ত শ্রেণী সচরাচর তাদের যত্সামান্য সঞ্চয় বিভিন্ন মেয়াদি সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করে থাকে। গত তিন বছরে সেই সঞ্চয়পত্রের বিক্রয় লক্ষ্যমাত্রার এক-চতুর্থাংশও পূরণ হয়নি। মধ্যবিত্তের সঞ্চয়ই নেই, তো সঞ্চয়পত্র কিনবে কোথা থেকে?
    মধ্যবিত্তের জীবনযুদ্ধের সঙ্গে আমার আজন্ম পরিচয়। প্রলোভনকে পরাজিত করে সততার সঙ্গে বেঁচে থাকতে হলে এই শ্রেণীকে প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করে যেতে হয়। গণমুখী শাসকশ্রেণীর কর্তব্য দেশে এমন এক পরিবেশ নিশ্চিত করা, যাতে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে মেধার বিকাশ সহজতর হয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে মহাজোটের এই মেয়াদে মধ্যবিত্ত শ্রেণীকে কেবল যে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে তাই নয়, রাষ্ট্র পরিচালনায় আইনের শাসনের সম্পূর্ণ অনুপস্থিতির ফলে তাদের জন্য সুস্থ প্রতিযোগিতার সব পথও রুদ্ধ হয়েছে। সর্বত্র দলবাজি কীভাবে মেধাকে গ্রাস করছে, সেই চিত্র দেখার জন্য দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর দিকে তাকালেই চলবে। শিক্ষক নিয়োগে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম অথবা দ্বিতীয় স্থান অধিকারীকে টপকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মী হওয়ার সুবাদে দ্বিতীয় শ্রেণীপ্রাপ্তরা অহরহ অগ্রাধিকার পাচ্ছে। বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সৌভাগ্যবশত ফাঁস না হলে লিখিত পরীক্ষার খাতা দেখায় যাও-বা কিছুটা নিরপেক্ষতা বজায় থাকে, কিন্তু মৌখিক পরীক্ষার নামে সরাসরি ছাত্রলীগের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ দিতে হয়। ছাত্রলীগ করলে ভাইভাতে পাস করা যাবে। নইলে পত্রপাঠ বিদায়।
    অন্যান্য সরকারি, আধা-সরকারি এবং স্বায়ত্তশাসনের ছদ্মাবরণে ক্ষমতাসীনদের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোতে দলবাজির অবস্থা আরও ভয়ঙ্কর। সেসব স্থানে মন্ত্রী, এমপিদের সুপারিশ ছাড়া চাকরি পাওয়া একেবারেই সম্ভব নয়। সেই সুপারিশ জোগাড় করতে ছাত্রলীগ করার সার্টিফিকেট প্রদানের অতিরিক্ত নগদ অর্থও দিতে হয়। সুতরাং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ছাড়া মেধার ভিত্তিতে চাকরি পাওয়া মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানদের পক্ষে ক্রমেই দুরূহ হয়ে পড়ছে। এদিকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ভিসিদের দলবাজি, দুর্নীতি ও অনিয়ম এবং ছাত্রলীগের সন্ত্রাসে একে একে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানরাই এইসব বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রধানত লেখাপড়া করে। তাদের শিক্ষাজীবনও এখন ব্যাহত হচ্ছে। বুয়েটের মতো ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও বন্ধ হয়ে সেখানেও সেশনজটের সৃষ্টি হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাজীবন দীর্ঘায়িত হলে তাদের শিক্ষার ব্যয়ভার বৃদ্ধির চাপ অভিভাবকদেরই বহন করতে হবে। অর্থাত্ সবমিলে মধ্যবিত্তের জীবন বর্তমান সরকারের আমলে ক্রমেই দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। আমার ধারণা, এই মধ্যবিত্ত শ্রেণীর একটা উল্লেখযোগ্য অংশ ২০০৮ সালের নির্বাচনে দিনবদলের আশায় আওয়ামী লীগকেই ভোট দিয়েছিল। শেয়ারবাজার ধ্বংস, চাকরির বাজার দলীয়করণ, লেখাপড়ার পরিবেশ বিনষ্ট, আইনের শাসনের বিনাশ, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশে যে প্রকৃতির দিনবদল উপহার দিয়েছে, তাতে সেই ভোটারদের আশাভঙ্গের বেদনার কোনো সীমা নেই বলেই ধারণা করছি।
    প্রশাসনে এত অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে একটি রাষ্ট্র অধিককাল টিকে থাকতে পারে না। ভবিষ্যতে যারা সরকারে আসার স্বপ্ন দেখছেন, তাদের এই ঘুণে ধরা প্রশাসনের প্রকৃত, গণমুখী সংস্কারের কৌশল এখনই নির্ধারণ করতে হবে। একটি বিশেষ শ্রেণীর হাতে পুঞ্জীভূত হওয়া বিপুল অবৈধ সম্পদ রাষ্ট্রের কোষাগারে ফিরিয়ে নিয়ে সম্পদের বণ্টনের (Distribution of wealth) অসহনীয় অসাম্য দূর করার অন্তত একটা আন্তরিক প্রচেষ্টা গ্রহণ করতে হবে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে যেভাবে হাওয়াই প্রতিশ্রুতির বন্যা ছুটিয়ে আওয়ামী লীগ নির্বাচনী বৈতরণী পার হয়েছিল, তার পুনরাবৃত্তি এবার আর সম্ভব হবে না বলেই আমি মনে করি। বর্তমান সরকারের পর্বতপ্রমাণ ব্যর্থতার পর জনগণের শেষ ভরসা গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত আগামী সরকার। তারা শিক্ষা গ্রহণ না করলে বাংলাদেশ অনিবার্যভাবেই অকার্যকর রাষ্ট্রের দিকে ধাবিত হবে। আশা করি, জনগণের মনের ভাষা এবার অন্তত ভবিষ্যত্ সরকারের নীতিনির্ধারকরা বুঝবেন।
     
  3. p3avi8tor69

    p3avi8tor69 FULL MEMBER

    Joined:
    Apr 24, 2012
    Messages:
    289
    Ratings:
    +0 / 258 / -0
    Country:
    United States
    Location:
    United States
    dude, perhaps you can translate that.
     
  4. Mr Javed

    Mr Javed FULL MEMBER

    Joined:
    Aug 25, 2011
    Messages:
    1,625
    Ratings:
    +0 / 1,242 / -0
    Good for Bangladesh internal consumption is always better for economic growth for populated countries....

    but....30 million internet users???

    r u sure cz last time i checked bangladesh internet users are arround 5 million....
     
  5. wild_fire1979

    wild_fire1979 FULL MEMBER

    Joined:
    Aug 10, 2009
    Messages:
    423
    Ratings:
    +0 / 233 / -0
    All of the above is clearly "Haram" and you all know it. Still you celebrate it as if this is a great achievement. BD should try to move back towards 7th Century as opposed to the 21st.

    I know Al-Zakir will agree with me :D
     
  6. Mr Javed

    Mr Javed FULL MEMBER

    Joined:
    Aug 25, 2011
    Messages:
    1,625
    Ratings:
    +0 / 1,242 / -0
    If you cannt apreciate your neibour's progress (which indians cant do as its law of survival in india to bash muslim countries) thn go & fart somewhere else so many Pakistan/Bangladesh/China/Srilanka bashing threads are open by indians for ur enjoyment .
     
  7. CaPtAiN_pLaNeT

    CaPtAiN_pLaNeT SENIOR MEMBER

    Joined:
    May 10, 2010
    Messages:
    7,685
    Ratings:
    +0 / 4,722 / -0
    That was .8 million connection but number of user was much higher. But recently due to mobile internet, wifi connection (specially cheap wimax service with wireless modem) and cyber cafes the number of users have increased exponentially. 30 million number is quite reasonable though not all of them may not be regular user.

    3g license is expected to be given to the operators soon. It will further help to increase the number of internet users in Bangladesh. I read some where total number of internet users could reach 80 million - 100 million mark by 2016 considering already there are more then 90 million mobile phone users.
     
  8. wild_fire1979

    wild_fire1979 FULL MEMBER

    Joined:
    Aug 10, 2009
    Messages:
    423
    Ratings:
    +0 / 233 / -0
    I don't give a flying fcuk about my neighbor's progress. But then my neighbors seem to suffer from low IQ and do not understand the word "sarcasm" :D

    Oh! BTW, Pakistanis accusing Indians of being jealous of their neighbors progress is like a monkey accusing an elephant that it likes banana a little too much :D
     
  9. zynga

    zynga BANNED

    Joined:
    Aug 4, 2012
    Messages:
    125
    Ratings:
    +0 / 74 / -0
    BDesis, look what friendship and stable relation with india is bringing.. prosperity of your people. hope the forumers here learn
     
  10. eastwatch

    eastwatch SENIOR MEMBER

    Joined:
    Jun 19, 2008
    Messages:
    7,503
    Ratings:
    +2 / 6,508 / -1
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Japan
    To all Indians, is the comment above is a trolling or a sarcasm? Yes, you are right, because of India our sky is lit with three moons around the year.
     
  11. Loki

    Loki ELITE MEMBER

    Joined:
    Apr 24, 2011
    Messages:
    14,481
    Ratings:
    +6 / 11,820 / -0
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Bangladesh
    Man, you people are ****ing nuts :crazy:
     
  12. Banglar Lathial

    Banglar Lathial FULL MEMBER

    Joined:
    May 12, 2011
    Messages:
    1,601
    Ratings:
    +1 / 1,183 / -0
    What's wrong with "M_Saint's" opinion? He has provided a very detailed explanation (quoting an editorial, I suppose) for his view point. The truth is that inflation is terribly high, law and order situation poor, political 'nepotism' if you like inescapable, bribery the norm, poor road/transport infrastructure seems to be accepted, inconsistent power supply hinders industrial growth, and the list of failures can continue "ad infinitum", almost

    Mamun Rashid, being a 'fat cat' earning well over a million Takas per month may not find enough reasons to complain, but if the vast majority of Bangladeshis were in his shoes or earning well over a million Taka per month, only then could his personal opinions be said to be representative of that of the 'average' Bangladeshis.

    Just one example off the top of my head. Eight new banks were granted licenses for operation by BAL. 4 billion Taka had to be deposited in cash/the likes for some capital/similar requirement for starting operations of these banks. Each of the 8 BAL hand-picked candidates could do so without breaking a sweat, presumably, as nobody would invest all of his wealth on a single bank that may or may not succeed well into the future, considering the dozens of already more established banks in operation.

    For them to fork out 4 billion Taka in cash (in the open) tells you a lot about the sort of corruption and embezzlement that is widespread under BAL. If they can fork out this sum in public, can you imagine what sort of sums the 'bigwigs' of BAL have stashed up under their Dadababus' thali or dhoti?
     
  13. Loki

    Loki ELITE MEMBER

    Joined:
    Apr 24, 2011
    Messages:
    14,481
    Ratings:
    +6 / 11,820 / -0
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Bangladesh
    Inflation of some food items have gone down. But yes, the law and order situation is bad. And economic growth rate is lower than the previous year, which won't help with the government's vision for Bangladesh graduating as a middle income nation by as far as 2021. It just won't happen.

    As per the topic, there is a steadily growing middle class right now, albeit not a very strong one. So it's nothing really big to brag about.

    There are people who get money through various illegal means. Not just the manner in which you mention. You'd be surprised how complete idiots make tons of money.

    They can even pay Tk. 7,000 tickets for flights to Cox's Bazar every few months :lol:

    But that doesn't mean they are all "Rawawamy" agents. That's just a crude generalization. That's what I was implying. In fact, it just reveals a childish form of paranoia.

    You are right about all that. There's a liquidity crises in the economy (thanks to AL's indecision and corruption), so opening up eight banks is just insane.

    Businesses are not investing and consumers are not spending. And saving instead. Further limiting growth rate.

    See, this party has a habit of setting goals that are just impossible to achieve under the circumstances. They promised this fairy tale known as "digital Bangladesh" as an election promise, and do they really think that it is possible to make all 150 million Bangladeshis as "digital" in that time? It's impossible.

    It is this habit reduces that party's credibility. And that credibility is now at an all time low. Even with Indian backing. Those guys have no idea what they are doing, and neither will the $7.5 billion transit would ever become a reality. Do they have any clue how much money that is? Can they even secure funds for the Padma Bridge? They are just corrupt, stupid old men. Thugs! All of them.

    Trying to ban Jamaat through this mock trial is futile at best.

    Again, this further reduces the AL's credibility. And allows people to see the nature of that party wide open, which is advantageous in the long term.

    So have some faith.

    As for corruption, the BNP were also corrupt. The key difference is that the BNP are not as anarchy-like as the AL. Which explains the deteriorating law and order situation now. In fact, the AL is more or less a mafia party.
     
  14. Banglar Lathial

    Banglar Lathial FULL MEMBER

    Joined:
    May 12, 2011
    Messages:
    1,601
    Ratings:
    +1 / 1,183 / -0
    Of course, not all the wealthy/well off/affluent people in BD or most countries for that matter belong to a single clan or party. It's just that the highly rosy picture painted by the author is probably his own personal opinion based on his experiences of mingling with members within his own social circle. Viewing the world with a rose-tinted glass or a BAL-tinted glass (however you may want to put it) would offer a very distorted picture of reality.

    Inflation is on the rise! That means not only are prices increasing, but the rate at which they are increasing is also increasing! Electricity prices, CNG/petroleum/whatever fuel people may use prices on the rise. If you read that editorial, you would be able to glean a few items on your own, so I wont bother with that.

    Then, that editorial also discussed the big share market scam that has not yet been discussed here at length. There are so many issues to be discussed that perhaps all 'independent' authors/intellectuals should publish their own books on cases of BAL mismanagement/looting.



    Neither BAL, nor BNP, nor Jamaat or any of the other major political parties are guilt free. BAL does have a habit of spouting off too much rubbish (one of their election promises in their manifesto was providing jobs to every household, and another one was keeping the price of staple items like rice at 10 Taka per kilogram).

    Nonetheless, those discussions belong more to the realms of politics, which can be discussed at length but I'd rather not do that.

    Whether the middle class in Bangladesh is actually growing is a matter of considerable debate, perhaps it requires some research. At the rate at which prices are increasing, the purchasing power of a lot of people who were in the middle or lower middle class have declined to the extent they may not belong to the middle class anymore. These categories are quite artificial in any case as there is no set rule to determine who belongs to middle class, upper class, aristocracy or what have you.
     
  15. Loki

    Loki ELITE MEMBER

    Joined:
    Apr 24, 2011
    Messages:
    14,481
    Ratings:
    +6 / 11,820 / -0
    Country:
    Bangladesh
    Location:
    Bangladesh
    ^^^May be I wasn't being specific enough of the middle class in Bangladesh.

    I forgot to mention, the purchasing power of Bangladeshi consumers have gone down due to the depreciating value of the Taka. This makes imports more expensive as a result. But makes exports cheaper. But still, it isn't good in the short term.

    The way the Taka depreciated was just legendary!
    [​IMG]

    Phew!

    If you ask me, the middle class was growing best during the Ershad-era.

    Now, places like Nandos (their food tastes horrible by the way), Pizza Hut, Pizza Inn, KFC, A&W, and Agora are typically visited by the upper and upper middle income classes.

    Places like those are pretty profitable. They *** in areas like Gulshan, Uttara, Dhanmondhi, and even in Chittagong. Even restaurant businesses like Baton Rogue and others. They do business and always very crowded!

    The same can be said about private hospitals. I mean, who'd say no to good health care facilities?

    Most English-medium schools aren't very expensive, and they are mostly good. The one my mom teaches at is packed with students. Unless it is American International School, Bangladesh :rofl:

    It has come a long way since 1971. Even in the midst of political volatility and conspiracies.

    For preventing confusion for anyone, here is the classification of all the social classes in Bangladesh:

    Upper Class
    -Upper Rich: 500,000-1000,000
    -Middle Rich: 100,000-500,000
    -Lower Rich: 80,000-100,000

    Middle Class
    -Upper Middle: 60,000-80,000
    -Middle Middle: 40,000-60,000
    -Lower Middle: 20,000-40,000

    Lower Class
    -Upper Lower: 15,000-20,000
    -Middle Lower: 10,000-15,000
    -Lower Lower: 5,000-10,000

    Poverty level: 0-5,000

    Anything below that is below poverty.

    All units are in Bangladesh Taka.
     
Thread Status:
Not open for further replies.